,



ফেভারিট’ পিএসজিকে চমকে দিতে প্রস্তুত আতালান্তা

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনাল মাঠে গড়াচ্ছে আজ। যেখানে ফরাসি জায়ান্ট প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি) মুখোমুখি হবে ইতালিয়ান ক্লাব আতালান্তার। পতুর্গালের লিসবনের এস্তাদিও দা লুজ স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায়। করোনাভাইরাসের কারণে এবার এক ম্যাচ দিয়েই চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালের নিষ্পত্তি হবে।
নেইমার-কিলিয়ান এমবাপ্পেদের নিয়ে গড়া পিএসজি ইউরোপের সেরা দলেরই একটি। গত ৬ মৌসুমে ৪ বারই ঘরোয়া ট্রেবল জিতেছে দলটি। তবে এখন পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন্স লীগটা জিততে পারেনি তারা। সেই আক্ষেপ ঘুচানোর পথে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য নিয়ে আজ খেলতে নামছে কোচ টমাস টুকেলের দল। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে একবারই সেমিফাইনাল পর্যন্ত গিয়েছিল পিএসজি (১৯৯৪-৯৫ মৌসুমে)।

সেবার ইতালিয়ান জায়ান্ট এসি মিলানের কাছে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-০ গোলে হেরে ছিটকে যায় তারা।
চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ইতালিয়ান ক্লাবগুলোর বিপক্ষে কখনো নকআউট পর্ব জিততে পারেনি পিএসজি। তবে আজকের ম্যাচে কাগজে-কলমে তারাই ‘ফেভারিট’। নিজেদের ১১২ বছরের ইতিহাসে মাত্র একটি শিরোপা (ইতালিয়ান কাপ) জিতেছে আতালান্তা। সেটিও ১৯৬৩ সালে। যদিও আতালান্তাকে ফেলনা ভাবার কারণ নেই। ইতালির সিরি আ লীগে এবার তৃতীয় হয়ে মৌসুম শেষ করেছে দলটি। লিসবনে চমক দেখাতেই নামবে তারা। প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শেষ আটে খেলতে যাওয়া আতালান্তা আলাদা অবস্থান তৈরি করতে চায় ইতালির ফুটবলে। দলীয় অধিনায়ক পাপু গোমেজ বলেন, ‘আমরা যে শহর (লমবার্দি) থেকে এসেছি সেখানে ১ লাখ মানুষের বাস। আমরা শহরের বড় কোনো ক্লাব নই। কিন্তু আমরা জানি কোথায় যাচ্ছি এবং কী আমাদের চাওয়া।’
ইতালির ক্লাবগুলোর মধ্যে শেষ ষোলোতে উঠেছিল জুভেন্টাস, নাপোলি আর আতালান্তা। এদের মধ্যে টিকে আছে শুধু আতলান্তা। তাদের দিয়েই চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ১০ বছরের আক্ষেপ ঘুচানোর স্বপ্ন ইতালির ফুটবলপ্রেমীদের। ২০১০ সালে সিরি আর শেষ ক্লাব হিসেবে এ ট্রফি জিতেছিল ইন্টার মিলান। এরপর দুবার ফাইনালে উঠেও পারেনি জুভেন্টাস। তবে আজকের ম্যাচে আতালান্তা পাচ্ছে না ইয়োসিপ ইলিচিচকে। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ৫ গোল করেছেন এই স্লোভেনিয়ান তারকা। সবমিলিয়ে চলতি মৌসুমে আতালান্তার সর্বাধিক গোলদাতা (২১) ইলিচিচ। আতালান্তা কোচ জিয়ান পিয়েরো গাসপেরিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমরা ইলিচিচকে খুব মিস করবো।’

ভরসার নাম নেইমার
কিলিয়ান এমবাপ্পে চোট থেকে পুরোপুরি সেরে উঠেননি। পিএসজি কোচ টমাস টুকেল জানিয়েছেন, এমবাপ্পেকে পুরো ৯০ মিনিট খেলানো অসম্ভব। এমন পরিস্থিতিতে নেইমারের ওপর নির্ভর করবে দলটি। নেইমারও চাইবেন ক্ষতি পুষিয়ে দিতে। চোটের কারণে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গত দুই আসরে শেষ ষোলোতে খেলতে পারেননি নেইমার। দু’বারই ছিটকে যায় পিএসজি। এবার শেষ ষোলোর দুই লেগেই খেলেছেন নেইমার। দুই গোল করে ৪ বছর পর দলকে তুলেছেন কোয়ার্টার ফাইনালে। লকডাউনের আগে দারুণ ফর্মে ছিলেন নেইমার। লীগ ওয়ানে ১৫ ম্যাচে ১৩ গোল ও ৬ অ্যাসিস্ট আর চ্যাম্পিয়ন্স লীগে ৪ ম্যাচে ৩ গোলের সঙ্গে ২ অ্যাসিস্ট করেন। পুনরায় খেলা শুরু হওয়ার পর নেইমারের একমাত্র গোলে ফ্রেঞ্চ কাপ জেতে পিএসজি। এছাড়া ফরাসি লীগ কাপ জয়েও সহায়তা করেন এই ব্রাজিলিয়ান।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর