,



ঢাকা ১৮ আসনের উপনির্বাচন: আলোচনায় প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহম্মেদ খান

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ শূন্য হওয়া এ সংসদীয় আসনে উপনির্বাচনে কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন- তা নিয়ে নানা হিসাব কষছেন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা। তাদের চিন্তাভাবনায় ও আলোচনায় এ আসনে একাধিক ব্যক্তির নাম উঠে এসেছে। একাধিক ব্যক্তির নামের এ তালিকায় এ অঞ্চলের ত্যাগী কয়েকজন নেতাও রয়েছেন। পাশাপাশি আছে বিভিন্ন খাতে বিশেষ অবদান রাখা কয়েকজন তারকা ব্যক্তির নাম। তবে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এই আসনে নৌকার টিকিট শেষ পর্যন্ত কে পাবেন তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

ঢাকা ১৮ আসনের উপনির্বাচন নৌকার মাঝি হিসেবে অন্যতম প্রধান আলোচিত নামটি হচ্ছে দেশের অন্যতম খ্যাতিমান চিকিৎসক, শিক্ষাবিদ, সমাজ সেবক ও সাংগঠনিক ব্যক্তিত্ব, প্রয়াত নেত্রী এডভোকেট সাহারা খাতুন এম পি এর অত্যন্ত বিশ্বস্থ্য হিসেবে যিনি ভূমিকা রেখে গেছেন, কখনো প্রকাশ্যে আবার কখনো লোক চক্ষুর আঁড়ালে। তিনি প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহমেদ খান।

প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান, দেশের অন্যতম খ্যাতিমান একজন চিকিৎসক, সমাজ সেবক ও সাংগঠনিক ব্যক্তিত্ব। দায়িত্ব পালন করছেন রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত ‘উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতাল’র অধ্যক্ষ ও  ইউরোলজী বিভাগের প্রধান হিসেবে। পড়াশুনার সুযোগ বুয়েটে হলেও, মায়ের ইচ্ছা ও স্বপ্ন পূরণে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন একজন সফল চিকিৎসক হিসেবে।  প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান একই সাথে একজন সামাজিক ব্যক্তিত্ব  ও সফল সংগঠকও। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে তরুণ বয়সে তার ভূমিকা ছিল উল্লেখ করার মত, মুক্তিবাহিনীদের, তথ্য, খাবার ও অন্যান্য রসদ সরবরাহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, রাজধানীর উত্তরাতে বাংলাদেশ ক্লাব, অফিসার্স ক্লাব, উত্তরা ০৬ নম্বর সেক্টর কল্যাণ সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ অসংখ্য সামাজিক সংগঠন, সেবা, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা, পরিচালনা, প্রতিষ্ঠাতা ও পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ভূমিকা রাখছেন এই মানুষটি। ছোটবেলা থেকেই মনে প্রাণে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালনকারী প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহম্মেদ খানকে সরকারি চাকুরী অবস্থায় বিএনপি জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত না হওয়ায় বৈষম্যের স্বীকার হয়ে সরকারি চাকুরী থেকে ইস্তফা দিতে হয়েছিল।

দেশের অভিজাত ও নামকরা বড় বড় চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান থেকে বিশাল সুযোগ-সুবিধার বিনিময়ে কাজ করার প্রস্তাব পেলেও, লোভ ত্যাগ করে তিনি ছুটে যান রাজধানী থেকে দূরে কোন এক মফস্বল এলাকায়, তৃণমূল অসহায় মানুষদের মাঝে সহজেই চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দিতে। করোনা ভাইরাস এর পাদুর্ভাবের এ সময়ে ব্যাপক ভাবে বিলিয়ে দিয়েছেন সহায়তার হাত নিম্ন আয়ের অসহায় মানুষ, কর্মহিন, বেকার জনগোষ্ঠি, ফুটপাত ও বস্তিতে থাকা মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তা।

পরবর্তীতে তিনি বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাথে যুক্ত হন, মনোনীত হন আজীবন সদস্য হিসেবে, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের একজন আজীবন সদস্য ও সক্রিয় কর্মী তিনি, একই সাথে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন জনাব প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহম্মেদ খান। তিনি বলেন ‘মা, বাবার পরই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ ও ঋণি, কেননা একটি স্বাধীন, সুন্দর বাংলাদেশ না পেলে হয়ত আজকের আমি প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহম্মেদ খান হতে পারতাম না’। প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহম্মেদ খান বলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে তারই স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে কাজ করে যাওয়ার সকল আমার অবস্থান থেকে কর্মসূচিতে প্রস্তুত ছিলাম, আছি এবং থাকব, ইনশাল্লাহ।

প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা বর্তমান সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নে সোপানে এগিয়ে যাচ্ছে অত্যন্ত দ্রুতগতিতে, এই ধারা অব্যাহত থাকলে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যেই আমাদের দেশ কাঙখিত লক্ষে পৌঁছে যাবে।

আদর্শিক ভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাহক প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের একজন সৈনিক। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত আওয়ামীলীগের সৈনিক এবং তরুণ প্রজন্মের বাতিঘর প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান নৈতিক গুণসম্পন্ন দক্ষ সাংগঠনিক শক্তির অধিকারী, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন একজন আওয়ামীলীগের নিবেদিত প্রাণ নেতা। তিনি তাঁর রাজনৈতিক কর্মতৎপরতা, প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারণকারী, সৃষ্টিশীল কাজে উদ্যোগী, অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন, সামাজিক ন্যায়পরায়ন ব্যক্তি হিসেবে আজকের এই সময়ে একজন যোগ্য সামাজিক রাজনৈতিক নেত্রীত্বের উদাহরণ।

স্বভাবসুলভ নিরহংকারী, বিনয়ী, সদালাপী, মিশুক, সেবা ও সহযোগিতাধর্মী গুণাবলীর জন্য প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান সমাজের মানুষের মনে জায়গা করে নেন খুব সহজেই। মানুষও তার প্রতিদান দেন তাকে দোয়া, ভালোবাসা আর সমর্থন দিয়ে। তার অর্জিত সুনাম, যশ ও খ্যাতি একই সাথে তার প্রতি মানুষের নিঃস্বার্থ এই দোয়া, ভালোবাসা আর সমর্থনও অনেক সময় তাকে অনেক কুচক্রি মহলের প্রতিহিংসার কারণ হয়ে দাঁড়াতে দেখা যায়।

প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে এবং আওয়ামীলীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশনকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি একটি শক্তিশালী সংগঠন প্রতিষ্টায় বিশ্বাসী। তাঁর হৃদয়ে বাংলাদেশ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, আদর্শে বঙ্গবন্ধু, রাজনৈতিক অনুসরনে জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আওয়ামীলীগের অতন্দ্র প্রহরী। তার এসব গুনাবলীর কারনে ঢাকা-১৮ আসনের সচেতন মানুষ তাকে নিয়ে আলোচনায় মেতে উঠেছে। আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা ‘সিএনএ-কমিউনিটি নিউজ এজেন্সি’ সরেজমিনে এলাকা ঘুরে উঠে আসে এ তথ্য সমূহ।

ব্যক্তিগত ভাবে ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান বলেন, সারা জীবন সমাজ-সমাজের মানুষের কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করতে চাই, অসহায় মানুষের মাঝে চিকৎসা সেবা ছড়িয়ে দেয়া, বৃহৎ পরিসরে মায়ের নামে একটি স্বাস্থ্য সেবামূলক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করতে চান তিনি। একইসাথে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে তারই স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে আজীবন কাজ করে যেতে চান প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান। তার এতোসব মহৎ কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তিনি দেশে বিদেশে পেয়েছেন  অসংখ্য খ্যাতি ও পুরুস্কার।

সবমিলিয়ে বৃহত্তর উত্তরা তথা ঢাকা ১৮ আসনের সাধারণ মানুষের ধারনা, প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান ই হতে পারেন সাবেক স্বরাষ্ট্র, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন এর যোগ্য উত্তস্যুরি ।

আসন্ন ঢাকা ১৮ আসনের উপ নির্বাচন সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রফেসর ডাঃ সাব্বির আহ্ম্মেদ খান ‘সিএনএ-কমিউনিটি নিউজ এজেন্সি’কে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল। এ দলের মনোনয়ন বোর্ড ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে বাছাই করেন, তাহলে আমি অবশ্যই নির্বাচনে অংশ নেব। তিনি সকলের দোয়া কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর