,



ইসলামে নিষিদ্ধ, তবুও যে কাজগুলো আমরা হরহামেশাই করি

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ ইসলাম শান্তির ধর্ম। একজন মুসলিমের তার ইমান ধরে রাখা খুবই সহজ। কেননা আমাদের পবিত্র কোরআন এবং হাদিসে সব ব্যাপারে দিক নির্দেশনা দেয়াই আছে। সব কিছু জেনেও অনেক সময় বেখেয়ালে কিংবা না জানার কারণে আমাদের দ্বারা এমন কিছু কিছু কাজ হয়ে যায়। যা আদৌ করা ঠিক নয় এবং হাদিস শরিফে সেগুলো সম্পর্কে নিষেধ করা হয়েছে।

সামান্য এসব ভুলে আমরা জাহান্নামে পতিত হতে পারি। চলুন জেনে নেয়া যাক সেইসব বিষয়ের কিছু হাদিস। যে কাজগুলো থেকে আমাদের পুরোপুরি বিরত থাকা উচিত।

> কেবলামুখি বা তার উল্টো হয়ে প্রসাব, পায়খানা করা যাবে না। (সহিহ বুখারি ৩৯৫, নাসায়ী: ২১, আত তিরমিজি: ৮)

> গোসলখানায় প্রসাব করা যাবে না। (ইবনে মাজাহ: ৩০৪)

 

গুলি বা তীরের নিশানা প্রশিক্ষণের জন্য প্রাণী ব্যবহার করা যাবে না। (মুসলিম: ৫১৬৭, সুনানে আবু দাউদ: ২৮১৭, ইবনে মাজাহ: ৩১৭০, আত তিরমিজি: ১৪০৯)

কারো মুখমণ্ডলে আঘাত করা যাবে না। আল হাদিস (মুসলিম: ৬৮২১, আবু দাউদ: ৪৪৯৬, আহমদ: ৫৯৯১)

> কাপড় পরিধান থাকা সত্বেও কারো গোপন অঙ্গের জায়গার দিকে দৃষ্টিপাত করা যাবে না। (মুসলিম: ৭৯৪, তিরমিজি: ২৭৯৩, ইবনে মাজাহ: ৬৬১, আহমদ: ১১৫০১)

> আল্লাহ ব্যতিত কারো নামে কসম করা যাবে না। বাপ-দাদার নাম, কারো হায়াত, কোরআন, মসজিদ এর নামে বা ছুঁয়ে কসম করা যাবে না। (আবু দাউদ: ৩২৫০, নাসায়ী: ৩৭৭৮)

 

কোনো প্রাণীকে আগুনে পুড়িয়ে মারা যাবে না। আল হাদিস (আবু দাউদ: ২৬৭৭, আহমদ: ১৬০৩৪)

রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহ তায়ালা ওই ব্যক্তির চেহারা উজ্জ্বল করে দিন, যে আমার কোনো হাদিস শুনেছে। অতঃপর অন্যের কাছে পৌঁছে দিয়েছে।’ (সুনানে আবু দাউদ ২/৫১৫)

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর