,



নিকলীতে ভাসমান নৌকায় আগুন, দগ্ধ আরও দুজনের মৃত্যু

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় ভাসমান নৌকায় আগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আরও  দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সকালে রাজধানীর শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটে চিকিৎসাধীন থেকে একজন ও বিকালে আরও একজনের মৃত্যু হয়।

মৃত মো. গিয়াস উদ্দিন (১৬) নিকলী উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের সাজনপুর গ্রামের জহির উদ্দিনের ছেলে ও আবুল হাশেম (২৫) নিকলী সদরের আবু সামার ছেলে।

এ নিয়ে ভাসমান নৌকায় ঘুমিয়ে থাকাবস্থায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ ৫ জনের মধ্যে তিনজনের মৃত্যু হলো।

এর আগে শুক্রবার ভোরে হাওর উপজেলা নিকলীর সিংপুর বাজার ঘাটের কাছে ঘোড়াউত্রা ও ধনু নদীর সঙ্গমস্থলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘুমন্ত অবস্থায় জহুর উদ্দিন (৪২) নামে  এক মাঝির মৃত্যু হয়।

এ ছাড়া চিকিৎসাধীন রয়েছে জহুর উদ্দিনের ছেলে বাপ্পি (১৩) ও একই এলাকার ইসরাফিলের ছেলে তারেক।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সিংপুর বাজারে একদিনের মেলা ছিল। মুড়ি-মুড়কিসহ নৌকা নিয়ে মেলায় যান জহুর উদ্দিন ও তার পরিবারের লোকজন। মেলা শেষে তারা ঘাটে ধনু নদীতে নৌকায় ঘুমিয়ে পড়েন। শেষ রাতে নৌকায় আগুন জ্বলতে দেখে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে ভেতর থেকে পাঁচজনকে উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনাস্থলেই নিহত হন নৌকার মাঝি জহুর উদ্দিন।

আহতদের প্রথমে বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে সেখান থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়।

নিকলী থানার ওসি শামসুল আলম সিদ্দিকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার উপজেলার সিংপুর বাজারে একদিনের মেলা ছিল। নৌকায় মুড়ি-মুড়কি ও চিনি-গুড় দিয়ে তৈরি খেলনা সামগ্রী নিয়ে মেলায় যান জহুর উদ্দিন ও তার লোকজন। মেলা শেষে তারা বাজার ঘাটের ধনু নদী পাড়ে নোঙর ফেলে নৌকায় ঘুমিয়ে পড়েন।

শেষ রাতে নৌকায় আগুন জ্বলতে দেখে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে ভেতর থেকে দগ্ধ পাঁচজনকে উদ্ধার করেন। এ সময় ঘটনাস্থলেই মারা যান নৌকার মাঝি জহুর উদ্দিন।

দগ্ধদের প্রথমে বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, পরে মুমূর্ষু অবস্থায় সেখান থেকে তাদের ঢাকায় পাঠানো হয়। নিকলী থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, মশার কয়েল থেকে আগুন লাগে। পরে নৌকায় থাকা রান্না করার গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এ আগুন ভয়াবহ রূপ নেয়।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর