,



নন্দীগ্রামে ১৪৪ ধারার মধ্যেই চলছে ভোটগ্রহণ, মমতার ভাগ্য নির্ধারণ আজ

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দ্বিতীয় দফায় নন্দীগ্রামসহ ৩০ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দল বদল করে বিজেপিতে যোগ দেওয়া তারই সাবেক সহযোগী শুভেন্দু অধিকারীর ভাগ্য নির্ধারণ হবে আজ। এই দুই হেভিওয়েট প্রার্থী লড়ছেন বিধানসভার নন্দীগ্রাম আসনে। পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রাখতে ভোট চলাকালে গোটা নন্দীগ্রামেই ১৪৪ ধারা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। সেখানে যখন ভোট চলবে তখন পাশের দুই জেলা হাওড়া ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় প্রচারণা চালাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সমগ্র ভারতের নজর রয়েছে নন্দীগ্রাম আসনের দিকে। এই আসনে মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে লড়াই তারই সাবেক অনুগামী এবং বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারীর। রয়েছেন সিপিএমের মিনাক্ষী মুখার্জিও। ত্রিমুখী লড়াইয়ে কে এগিয়ে তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। শেষ হাসি কে হাসবেন, তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে ২ মে পর্যন্ত। সেই দিনই পশ্চিমবঙ্গসহ আসাম, তামিলনাড়ু, পণ্ডিচেরি এবং কেরালার নির্বাচনের ফল প্রকাশ হবে। তবে ‘হট সিট’ নন্দীগ্রাম ভোটের আগে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা পড়েছে। সেখানে ঢোকার সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বাইরে থেকে সেখানে লোক ঢুকতে গেলে কারণ ব্যাখ্যা করতে হচ্ছে। গোটা এলাকাজুড়ে চলছে আধাসামরিক বাহিনীর নজরদারি।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গে ভোট চলাকালে বিরোধী ঐক্য চেয়ে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীসহ এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার, বিহারের আরজেডি নেতা তেজস্বী যাদব, আম আদমি পার্টির (আপ) অরবিন্দ কেজরিওয়াল, উড়িশার বিজেডির নবীন পট্টনায়ক, তামিলনাড়ুর ডিএমকে প্রধান এম কে স্ট্যালিন, মহারাষ্ট্রের শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরেরকে চিঠি দিয়েছেন মমতা। তিনি বলেছেন, গণতন্ত্র এবং সংবিধানের বিরুদ্ধে বিজেপি যে আঘাত হানছে, তার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের সময় এসেছে।

এই নন্দীগ্রামেই শিল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পথ করে নিয়েছিলেন মমতা ব্যানার্জি- এখন থেকে ১৪ বছর আগে। এবার তিনি নিজেই লড়ছেন নন্দীগ্রামের বিধানসভা আসনে।

এদিকে ভোটের আগের দিন অর্থাৎ বুধবার নন্দীগ্রামে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে সেখানে এক হাজারেরও বেশি কেন্দ্রীয় পুলিশের সদস্য আনা হয়েছে। আকাশপথে নজরদারির বন্দোবস্ত করা হয়েছে। শুধু ওই আসনের জন্য থাকছেন এক পর্যবেক্ষক। অতিরিক্ত ডিজি পশ্চিমাঞ্চলেরর নেতৃত্বে পাঠানো হচ্ছে অতিরিক্ত দুজন আইপিএস অফিসারকে। সূত্র : এনডিটিভি, আনন্দবাজার

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর