,



ভয়াল একুশে আগস্টের ১৭তম বার্ষিকী শনিবার

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য অনেক বার চেষ্টা করা হয়েছে তার মধ্যে অন্যতম একটি দিন আগামীকাল ২১ আগস্ট বুধবার। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের ‘সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিবিরোধী’ সমাবেশে এক নারকীয় গ্রেনেড হামলার ঘটনা বাংলাদেশে এক কলঙ্কময় অধ্যায়ের জন্ম দেয়। এ দিন আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী হতাহতের পাশাপাশি আহত হন শেখ হাসিনা।

তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরিচালিত পৈশাচিক এই হামলায় সেদিন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী বেগম আইভি রহমানসহ আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছিলেন। আহত হয়েছিলেন আরও ৪০০ জন। আহতদের অনেকেই চিরতরে পঙ্গু হয়ে গেছেন। শরীরে গ্রেনেডের স্প্রিন্টার আজও বয়ে বেড়াচ্ছেন অনেকে।

২১ আগস্ট সংঘটিত এই গ্রেনেড হামলার সুষ্ঠু তদন্তে সে সময়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বিএনপি-জামায়াতের চারদলীয় ঐক্যজোট সরকার। ২০১০ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে সুষ্ঠু তদন্ত শুরু হয় এই হামলার। তখন উঠে আসে চাঞ্চল্যকর বেশ কিছু তথ্য। তদন্ত প্রতিবেদনের তথ্যানুসারে, গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের পেছনে ছিলেন বিএনপি-জামায়াতের প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ, দেশের একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তা, কয়েক জন শীর্ষ জঙ্গি আর পাকিস্তান। পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্টের মতোই ২১ শে আগস্টের হামলার নীলনকশা তৈরি করা হয়েছিল। ঐ সময়ের (২০০৪ সালের) কিছু সামরিক কর্মকর্তা আর জঙ্গি নেতাদের নিয়ে হাওয়া ভবনে বসে ক্ষমতার কেন্দ্রে থাকা বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান সবকিছু চূড়ান্ত করেন। হামলায় অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের পাকিস্তানে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। পরে তাদের এই হামলার জন্য সরবরাহ করা হয় পাকিস্তানের আর্জেস গ্রেনেড। আর হামলা শেষে পাকিস্তান ঘাতকদের আশ্রয়ও দেয়। অভিযোগ রয়েছে, মূলত আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতে বিএনপি-জামায়াত তথা চারদলীয় জোট সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে নৃশংসতম এই গ্রেনেড হামলা চালায়।

যেভাবে হামলা করে জঙ্গি-সন্ত্রাসীরা : দেশের প্রতিটি জেলায় একযোগে বোমা হামলা, বাংলা ভাই ও শায়েখ আব্দুর রহমানের মতো জঙ্গিদের প্রশ্রয় দেওয়া থেকে শুরু করে জামায়াত-বিএনপির সকল অপকর্ম, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদ জানাতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বিকাল ৪টায় সমাবেশের ঘোষণা দেয় আওয়ামী লীগ। যথাসময়ে সমাবেশ শুরুও হয়। সমাবেশের পর সারা দেশে বোমা হামলায় নিহতদের স্মরণে শোক মিছিলের কর্মসূচি ছিল। বিকাল সাড়ে ৪টা নাগাদ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ এলাকা পরিণত হয় জনসমুদ্রে। শেখ হাসিনা বিকাল ৫টার দিকে সমাবেশস্থলে পৌঁছান। বুলেটপ্রুফ মার্সিডিজ বেঞ্জ জিপ থেকে নেমে নিরাপত্তাকর্মী বেষ্টিত অবস্থায় তিনি দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে একটি ট্রাকের ওপর তৈরি অস্থায়ী মঞ্চে উঠে বক্তৃতা শুরু করেন। ২০ মিনিটের বক্তৃতা শেষে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ উচ্চারণ করে শেখ হাসিনা তার হাতে থাকা একটি কাগজ ভাঁজ করতে করতে এগোচ্ছিলেন ট্রাকের মঞ্চ থেকে নামার সিঁড়ির কাছে। সঙ্গে সঙ্গে দক্ষিণ দিক থেকে মঞ্চ লক্ষ্য করে একটি গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হয়। গ্রেনেডটি মঞ্চের পাশে রাস্তার ওপর পড়ে বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। এরপর একে একে আরও ১২টি গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয়। মুহূর্তের মধ্যে পুরো এলাকা ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায়। আতঙ্কে মানুষ দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করে। গ্রেনেডের আঘাতে মঞ্চের নিচে রাস্তার ওপরে বসা বেগম আইভি রহমানসহ বহু মানুষ লুটিয়ে পড়েন। ঘাতকদের প্রধান লক্ষ্য ছিল শেখ হাসিনা। পরিস্থিতির তাত্পর্য বুঝতে পেরে মঞ্চে উপস্থিত ঢাকার মেয়র মোহাম্মদ হানিফ এবং শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী তাত্ক্ষণিকভাবে এক মানবঢাল তৈরি করে শেখ হাসিনাকে গ্রেনেডের হাত থেকে রক্ষা করেন। পরে শেখ হাসিনাকে বহনকারী গাড়ির ওপরও গুলিবর্ষণ করা হয়। এ সময় শেখ হাসিনাকে রক্ষা করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান তার ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী।

আহতদের মধ্যে আওয়ামী লীগের তিন শতাধিক নেতাকর্মীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে, আরও শতাধিক নেতাকর্মীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়, বারডেম, বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, শমরিতা হাসপাতালসহ রাজধানীর অন্যান্য হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিত্সা দেওয়া হয়।

হতাহত হন যারা:

এই বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় নিহতদের মধ্যে ছিলেন আইভি রহমান, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী ল্যান্স করপোরাল (অব.) মাহবুবুর রশীদ, আবুল কালাম আজাদ, রেজিনা বেগম, নাসির উদ্দিন সরদার, আতিক সরকার, আবদুল কুদ্দুস পাটোয়ারি, আমিনুল ইসলাম মোয়াজ্জেম, বেলাল হোসেন, মামুন মৃধা, রতন শিকদার, লিটন মুনশী, হাসিনা মমতাজ রিনা, সুফিয়া বেগম, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), মোশতাক আহমেদ সেন্টু, মোহাম্মদ হানিফ, আবুল কাশেম, জাহেদ আলী, মোমেন আলী, এম শামসুদ্দিন, ইসাহাক মিয়া প্রমুখ। ঘটনাস্থলেই নিহত হন ১৬ জন। নারী নেত্রী আইভি রহমান ৫৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে ২৪ আগস্ট মারা যান। আহত হওয়ার পর প্রায় দেড় বছর মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হেরে যান আওয়ামী লীগের জনপ্রিয় নেতা ও প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ।

আহত হয়েছিলেন শেখ হাসিনা, আমির হোসেন আমু, প্রয়াত আব্দুর রাজ্জাক, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ওবায়দুল কাদের, সাহারা খাতুন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, নজরুল ইসলাম বাবু, আওলাদ হোসেন, সাঈদ খোকন, মাহবুবা আখতার, উম্মে রাজিয়া কাজল, নাসিমা ফেরদৌস, শাহিদা তারেক দীপ্তি, রাশেদা আখতার রুমা, হামিদা খানম মনি, ইঞ্জিনিয়ার সেলিম, রুমা ইসলাম, কাজী মোয়াজ্জেম হোসেইন, মামুন মল্লিক প্রমুখ।

দিবসটি উপলক্ষ্যে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ। আলোচনাসভা, নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, মোমবাতি প্রজ্বালনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি শনিবার পালন করা হবে। নিহতদের স্মরণে এদিন সকাল ৯টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নির্মিত বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন করা হবে। কর্মসূচিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নেতৃবৃন্দ, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এবং সহযোগী সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকগণ স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে উপস্থিত থাকবেন। ২১ আগস্ট নারকীয় গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে ও হতাহতদের স্মরণে সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ বিরোধী বিভিন্ন কর্মসূচি যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালন করার জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সকল স্তরের নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর