,



পর্তুগালে সিটি নির্বাচনে অংশ নেবেন দুই বাংলাদেশি

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ পর্তুগালের রাজধানী লিসবন ও বন্দর নগরী পোর্তো মিউনিসিপালিটির আসন্ন সিটি নির্বাচনে প্রার্থিতা ঘোষণা করেছেন দুই প্রবাসী বাংলাদেশি। এর মধ্যে লিসবনে অনুষ্ঠিতব্য সিটি নির্বাচনে অংশ নেবেন স্থানীয় ক্ষমতাসীন সোশ্যালিস্ট পার্টির রাজনীতির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সম্পৃক্ত রানা তাসলিম উদ্দিন। এছাড়া বন্দরনগরী দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর পোর্তোর সিটি নির্বাচনে অংশ নেবেন সোশ্যালিস্ট পার্টির মহানগরের সদস্য শাহ আলম কাজল।

গত রোববার (২২ আগস্ট) বিকেল ৬টায় স্থানীয় একটি রেস্টুরেন্টে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রার্থিতা ঘোষণা করেন রানা তাসলিম উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, পর্তুগালের রাজধানী লিসবন মিউনিসিপালিটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি অঞ্চল। এই মিউনিসিপালিটির অ্যাসেম্বলির নীতিনির্ধারণী পদে নির্বাচন করা আমাদের বাংলাদেশিদের জন্য একটি বড় অর্জন।  এ অর্জনের এর মূল অংশীদার আমাদের বাংলাদেশি কমিউনিটি। এ সময় তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন এবং কমিউনিটির সকলকে পর্তুগিজ মূল ধারার রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংগঠনগুলোয় যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

এদিকে পর্তুগালের বন্দর নগরী দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর পোর্তোতে বসবাসকারী বাংলাদেশ কমিউনিটি পোর্তোর সভাপতি ও ক্ষমতাসীন সোশ্যালিস্ট পার্টির মহানগরের সদস্য শাহ আলম কাজল আসন্ন সিটি নির্বাচনে বাংলাদেশি অধ্যুষিত ফ্রেগজিয়া বনফিমের অ্যাসেম্বলি সদস্য বা কাউন্সিলর হিসেবে ৩ নং পদে প্রার্থী হয়েছেন।

শাহ আলম কাজল এক লিখিত বার্তায় বলেন, আমরা এই ক্ষুদ্র প্রয়াসের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের কাছে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চাচ্ছি। যাতে তারা এ পথ অনুসরণ করে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে পারে। তাছাড়া তিনি পোর্তোর বাংলাদেশ কমিউনিটির সকল ভোটারদের আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর নির্বাচনে ভোট প্রদান করে তার বিজয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি  উজ্জ্বল করার আহ্বান জানান।

আসন্ন নির্বাচনে এ দুই প্রার্থী যদি বিজয়ী হন তাহলে পর্তুগালের ইতিহাসের পাতায় নাম লেখাবেন তারা। এ প্রসঙ্গে রানা তসলিম উদ্দিন জানান, লিসবন মিউনিসিপালিটির যে পদে তিনি প্রার্থী হয়েছেন, এর আগে কোনো বাংলাদেশি এ পদে প্রার্থী হননি। তার বিজয় পর্তুগালে বাংলাদেশিদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে।
পর্তুগালে এবং ইউরোপের অন্যান্য দেশে বসবাসরত বাংলাদেশিরা স্থানীয় রাজনীতিতে প্রতিনিধিত্বকারী বাংলাদেশি কৃতি সন্তান হিসেবে তাদের কর্মকাণ্ডের ভূয়শী প্রশংসা করেন এবং নির্বাচনে তাদের বিজয়ের জন্য শুভকামনা জানান।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর