,



চকরিয়া পৌর-নির্বাচন: ভোটের লড়াই শুরু ৪ মেয়র প্রার্থীর

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ নির্বাচন কমিশন (ইসি) ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২০ সেপ্টেম্বর (সোমবার) অনুষ্ঠিত হচ্ছে কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন। প্রথমবারের মতো চকরিয়া পৌরসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে ইলেকট্রিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)-এর মাধ্যমে।

এই নির্বাচনকে ঘিরে ইতোমধ্যে সরব হয়ে উঠেছে পৌরসভার প্রতিটি জনপদ। এখন অলিগলিতে শোভা পাচ্ছে ৪ মেয়র প্রার্থীর পোস্টার ব্যানার পেস্টুন। এই ৪ জন হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী (নৌকা), নাগরিক কমিটি মনোনীত স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর জিয়াবুল হক (নারিকেল গাছ), জাতীয় পার্টি (এরশাদ) মনোনীত প্রার্থী মনোয়ার আলম (লাঙ্গল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাডভোকেট ফয়সাল সিদ্দিকী (কম্পিউটার)।
এদিকে, রিটার্নিং অফিসার ও চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ সামসুল তাবরীজ ইতোমধ্যে নির্বাচনি কার্যক্রম শুরু করতে বিধিমালা জারি করেছেন। ২ সেপ্টেম্বর জারি করা ওই বিধিমালায় বলা হয়েছে, আচরণবিধি অনুসরণ করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এখন থেকে প্রার্থীরা নির্বাচনি প্রচারণা চালাতে পারবেন। মূলত রিটার্নিং অফিসারের ওই নির্দেশনার পরই প্রার্থীরা মাঠে নেমেছে। চালাচ্ছেন উঠান বৈঠক, গণসংযোগসহ নানামুখী প্রচারণা। পাশাপাশি পৌরসভার অলিগলিতে চলছে প্রার্থীদের পক্ষে মাইকিং।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জনের পাশাপাশি ভোটের মাঠে লড়াই নেমেছিলেন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে তিন ওয়ার্ডে ১৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৯ ওয়ার্ডে ৫৪ জন। সব মিলিয়ে ৩ পদে মোট ৭২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এরমধ্যে বাতিল হওয়া, আপিলে ফিরে পাওয়াসহ বর্তমানে মেয়র পদে চার জন, ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নারী কাউন্সিলর পদে ১৪ জন এবং ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫০ জন মিলে মোট ৬৮ জন প্রার্থী ভোটের মাঠে আছেন। ইতোমধ্যে প্রতীকও বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

গত ১১ এপ্রিল চকরিয়া পৌরসভার নির্বাচনি তফসিল ঘোষণার পর মেয়র পদে বিএনপি থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছিলেন সাবেক পৌর মেয়র ও চকরিয়া পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আলহাজ নুরুল ইসলাম হায়দার। পরে অবশ্য মনোনয়ন ফরম আর জমা দেননি। ফলে, এ নির্বাচনে বিএনপি দলীয় কোনো মেয়র প্রার্থী ভোটের মাঠে নেই।

সুষ্ঠুভাবে নির্চান অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‘চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ, গ্রহণযোগ্য পরিবেশে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি প্রচার-প্রচারণার সময় প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে কি না, তাও কঠোরভাবে নজরদারি করা হচ্ছে।’
উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১ এপ্রিল ইসি-ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী চলতি বছরের ১১ এপ্রিল এবং পরবর্তী সময়ে ২০ এপ্রিল তফসিল অনুযায়ী ২১ জুন চকোরিয়া পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। পরবর্তী সময়ে করোনা দুর্যোগের আশঙ্কা থেকে সারাদেশের অন্য পৌরসভার সঙ্গে চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনও স্থগিত হয়ে যায়। দুই মাস পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করলে সর্বশেষ গত ২ সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশনের বৈঠক শেষে স্থগিত পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠানের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। নতুন তফসিল অনুযায়ী আগামী ২০ সেপ্টেম্বর এই পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এই পৌরসভার ৯ ওয়ার্ডে ভোট দেবেন ৪৮ হাজার ৭২৪ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ২৫ হাজার ৮৯৯ জন। আর নারী ভোটার রয়েছেন ২২ হাজার ৮২৫ জন।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর