,



যুব রেড ক্রিসেন্ট ক্যাম্পের সমাপনী, ১৫০০ স্বেচ্ছাসেবকের শপথ

মানবতার শক্তিতে বিশ্বাস রাখার শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ১৪তম জাতীয় যুব রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছাসেবক ক্যাম্প ২০২২। বাংলাদেশসহ সাতটি দেশের ১ হাজার ৫০০ যুব স্বেচ্ছাসেবক অংশ নেন তিন দিনের এই জাতীয় ক্যাম্পে। এবারের প্রতিপাদ্য ছিল ‘টেকসই ভবিষ্যতের লক্ষ্যে যুব নেতৃত্ব।’

বুধবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে জাতীয় স্কাউট প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাঠে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ক্যাম্পের সমাপনী ঘোষণা করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এমপি। স্বেচ্ছাসেবকদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি স্বেচ্ছাসেবামূলক কার্যক্রমে দেশের অন্যতম দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠান। মানবসেবায় প্রতিষ্ঠানটি বহুমুখী অবদান রাখছে, বিশেষ করে আগামী প্রজন্মকে মানবিক গুণাবলিসম্পন্ন করে গড়ে তোলার পাশাপাশি জনহিতকর কাজে উদ্ধুদ্ধ করছে।’ দেশের জরুরি পরিস্থিতিতে স্বেচ্ছাসেবকদের সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। সমাপনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল এ টি এম আবদুল ওয়াহ্‌হাব (অব.)। যুব সদস্যদের মধ্যে নেতৃত্বের বিকাশ ঘটাতে এবং সর্বস্তরে স্বেচ্ছাসেবার মনোভাব সৃষ্টিই এই ক্যাম্পের মূল লক্ষ্য বলে জানান তিনি। বলেন, ক্যাম্পে অর্জিত জ্ঞান স্বেচ্ছাসেবকদের সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে সাহায্য করবে, যা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে এক হাজারেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবকের অংশগ্রহণে হয় মনোজ্ঞ মিউজিক্যাল ডিসপ্লে। ১৮৫৯ সালে ফ্রান্স ও অস্ট্রিয়ার মধ্যকার সলফেরিনো যুদ্ধের পটভূমিতে করা নাটক মঞ্চায়িত হয়। যে যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে বিশ্বব্যাপী শুরু হয় রেড ক্রস রেড ক্রিসেন্ট আন্দোলন। পরে মাননীয় মন্ত্রী ও সোসাইটির চেয়ারম্যান মহোদয়কে ক্যাম্পের ক্রেস্ট প্রদান করে পরিয়ে দেওয়া হয় উত্তরীয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান মহোদয়ের সহধর্মিণী আফরোজা শাহানী ওয়াহ্‌হাব ও ভাইস চেয়ারম্যান নূর-উর-রহমান। এ ছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন সোসাইটির ব্যবস্থাপনা পর্ষদের সম্মানিত সদস্য, সোসাইটির মহাসচিব, উপমহাসচিব, বিভিন্ন বিভাগের পরিচালকসহ সোসাইটির বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করার মধ্য দিয়ে গেলো ১৯ ডিসেম্বর শুরু হয় স্বেচ্ছাসেবক ক্যাম্প। মানবতার শক্তিতে বিশ্বাস রাখতে গ্রহণ করা হয় শপথ। যুব সম্পদকে উন্নত ও প্রশিক্ষিত করতে এবং নতুন প্রজন্মকে মানবিক করে গড়ে তুলতে তিনদিনের এই ক্যাম্পে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয় স্বেচ্ছাসেবকদের। বাংলাদেশ ছাড়াও ভূটান, মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ব্রুনাই ও পাকিস্তানের যুব স্বেচ্ছাসেবকরা অংশ নেন ক্যাম্পে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর