সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত হচ্ছে আজ

দ্বাদশ জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত করতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। মনোনয়নপ্রত্যাশী সবাইকে আজ বুধবার গণভবনে ডাকা হয়েছে। সেখানে সবার সঙ্গে মতবিনিময় করবেন আওয়ামী লীগ ও মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা। পরে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হতে পারে।

আজ বিকেলেই প্রকাশ হতে পারে নারী আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকা।যাঁরা প্রার্থী হতে পারছেন না তাঁরা মনোমালিন্য ভুলে যেন একসঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করেন, প্রার্থীদের আজ সেই বার্তা দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্বাদশ সংসদে ৫০টি সংরক্ষিত আসনের মধ্যে ৪৮টিতে প্রার্থী দেবে আওয়ামী লীগ। কিন্তু এই ৪৮ আসনের বিপরীতে মনোনয়নপ্রত্যাশী রয়েছেন এক হাজার ৫৪৯ জন।

দলয় সূত্র বলছে, মনোনয়নপ্রত্যাশী বেশির ভাগেরই নানা দিক থেকে প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা রয়েছে। তবে চূড়ান্ত প্রার্থী নির্ণয় করবেন মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা। সবাইকে একসঙ্গে ডাকার উদ্দেশ্য দলীয় প্রধানের বার্তা পৌঁছে দেওয়া। এমনকি সংরক্ষিত নারী সদস্যদের মধ্য থেকে কেউ কেউ মন্ত্রিসভাতেও জায়গা পেতে পারেন।

এর মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভার আকার বাড়তে পারে।কর্মসূচি অনুযায়ী, আজ সকাল ১০টায় সংরক্ষিত নারী আসনে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাত্কার শুরু হবে। পরে দুপুর ১২টা থেকে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগ ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক সদস্য কালের কণ্ঠকে বলেন, মনোনয়ন বোর্ডের সভাতেই প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

এর আগে প্রার্থীদের সঙ্গে নেত্রী (শেখ হাসিনা) কথা বলবেন। সংরক্ষিত আসনে কারা প্রার্থী হতে যাচ্ছেন, সেটা নেত্রীই জানেন। তবে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী চূড়ান্ত করে কালকেই (আজ) তালিকা প্রকাশ করা হতে পারে।সময় কম তাই বৈঠকেই প্রার্থী চূড়ান্ত 
নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট হবে আগামী ১৪ মার্চ। কিন্তু দল এবং জোটগুলো নিজেদের প্রাপ্য আসনের বাইরে প্রার্থী না দেওয়ায় ভোট করার দরকার হয় না। দলীয় একক প্রার্থী মনোনয়ন পান বিধায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে প্রার্থীরা সংসদে সংরক্ষিত আসনে সদস্য হন।

আগামী রবিবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টার মধ্যে দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা নির্বাচন কমিশনে জমা দিতে হবে। এর আগে দলীয় মনোনীত প্রার্থী দলের সভাপতির স্বাক্ষরযুক্ত মনোনয়নপত্র পূরণ করবেন। পরে কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী, অন্য তথ্য সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রসহ আবেদন জমা দিতে হবে। সে ক্ষেত্রে মাঝে প্রার্থীরা সময় পাচ্ছেন মাত্র তিন দিন। তাই আজকে বিকেলেই আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার ধানমণ্ডিতে শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগ মনোনয়ন বোর্ডের সভায় মনোনয়ন চূড়ান্ত হবে।’

কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১৯ ও ২০ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এদিকে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্ররা নারী আসনে প্রার্থী মনোনয়নে আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিয়েছে। জোটের শরিকরাও একই পথে। ফলে ২৮৭ আসনের সমর্থনে ৫০ সংরক্ষিত আসনের ৪৮টিই প্রার্থী দিতে পারছে দলটি।

বেশির ভাগ আসতে পারেন নতুন মুখ 
বর্তমান সংসদের বেশির ভাগ সদস্য বাদ পড়তে পারেন। প্রার্থীর তালিকায় নতুন মুখ আসার সম্ভাবনা বেশি। মিশ্র প্রার্থী দিতে পারে আওয়ামী লীগ। রাজনৈতিক পরিবারের পাশাপাশি কয়েকটি আসনে ‘সেলিব্রিটিদের’ প্রার্থী হিসেবে দেখা যেতে পারে। সব ধরনের শ্রেণি-পেশার নারীরা তালিকায় গুরুত্ব পাবেন।

এ ছাড়া কয়েকটি আসনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিকদের অনুরোধ রাখা হতে পারে। এসব আসনে জোটের বড় শরিকদের প্রার্থীরা মনোনয়ন পেতে পারেন। আবার প্রবীণ রাজনৈতিক পরিবারের সদস্যদের প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করবে আওয়ামী লীগ। আবার যাঁরা জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থিতা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তাঁদের সম্ভাবনাও অনেক বেশি রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, যাঁরা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে স্মার্ট নেতৃত্ব দিতে পারবেন তাঁদেরই সংসদের অংশ করবেন দেশরত্ন শেখ হাসিনা। নেত্রী সব সময় ত্যাগীদের মূল্যায়ন করেছেন। তিনি অতীত ভোলেন না। তাঁরা অবশ্যই সেই সুফল পাওয়ার মধ্য দিয়ে প্রার্থীর তালিকায় জায়গা করে নেবেন।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর