,



আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে আসছে বেশকিছু পরিবর্তন

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ১০-১১ জুলাই। ক্ষমতাসীন দলের এ কাউন্সিলে গঠনতন্ত্রে আসছে বেশ কিছু পরিবর্তন। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি ছাড়াও দলের মুখপাত্র নামে নতুন পদ সংযোজনসহ বেশ কিছু পরিবর্তন আসতে পারে। বিলুপ্তি করা হতে পারে কেন্দ্রীয় উপকমিটির সব সহসম্পাদকের পদ। এছাড়াও সাংগঠনিক সম্পাদকসহ বাড়তি পারে কমিটির আকার।

বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ দলীয় সভাপতির কার্যালয়ে গঠনতন্ত্র উপ-কমিটির এক সভার মধ্য দিয়ে এসব চূড়ান্ত করা হতে পারে। এর আগে সর্বশেষ গত ০৪ মে গঠনতন্ত্র উপ কমিটির বৈঠক বসেছিল।

গঠনতন্ত্র উপ পরিষদের আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের কৃষি-সমবায় বিষয়ক সম্পাদক সাবেক মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক পূর্বপশ্চিমকে জানান, গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন এনে আরও যুগোপযোগী করা হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রাচীন গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের গঠনতন্ত্র আমরা সংগ্রহ করে দেখেছি। গঠনতন্ত্র সংশোধনের জন্য কিছু প্রস্তাব চূড়ান্তও করেছি। সব মিলিয়ে দলীয় গঠনতন্ত্রকে যুগোপযোগী করা হবে।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কমিটির একজন সদস্য জানান, বর্তমানে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ৭৩ সদস্য বিশিষ্ট আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি। কিন্তু আগামী কেন্দ্রীয় কমিটিতে অনেককেই জায়গা দিতে হবে। ফলে সদস্য সংখ্যা বাড়তে পারে। আবার বেশ ক’টা নতুন বিভাগ হয়েছে, সেক্ষেত্রে সাংগঠনিক সম্পাদক বাড়ানোর কথা। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সংখ্যাও বাড়তে পারে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আগামী ১৫ জুনের মধ্যে গঠনতন্ত্র সংশোধন সংক্রান্ত রিপোর্ট চূড়ান্ত করবো। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের সাড়ে ৭ বছরের অনেক অর্জন রয়েছে। আগামী সম্মেলনে এই অর্জনের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও ভবিষ্যতের পথচলা নির্ধারণ করা হবে এ কাউন্সিলের মাধ্যমে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন পূর্বপশ্চিমকে বলেন, ‘২০৪১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের ভাগ্য কীভাবে নির্ধারিত হবে, আমরা কীভাবে উন্নয়নের যাত্রার ছক আঁকব- সেটার সুনির্দিষ্ট একটি গাইডলাইন এ কাউন্সিলে ঠিক হবে। বিভাগ বেড়েছে, তাই বিভাগে সাংগঠনিক পদ দুটি বাড়াতে হবে। এই দুটি ব্যাপারে আমাদের মনে হয় না কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্বের অবকাশ আছে। আরও কিছু পরিবর্তন হতে পারে। সভা শেষ বলতে পারব।’

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর