,



এবার রাজনীতিতে মুখোমুখি হচ্ছেন এরশাদ-বিদিশা

প্রয়াত কাজী জাফর আহমেদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হতে যাচ্ছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক(!) এমন গুঞ্জন এখন জাতীয় পার্টিসহ সকল রাজনৈতিক দলগুলোতে। আর এই গুঞ্জন মূলত শুরু হয় শনিবার বিএনপির দেওয়া ইফতার পার্টি থেকে। বিএনপির ইফতার আয়োজনে কাজী জাফরের জাতীয় পার্টির নেতাদের জন্য বরাদ্দকৃত টেবিলে বিদিশা বসার পর থেকে রাজনীতিবিদদের মধ্যে এই গুঞ্জন শুরু হয়।

দীর্ঘদিন শুধু রাজনীতি না সকল সামাজিক যোগাযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা সিদ্দিক। এতোদিন আড়ালে নিরবে থেকে নিজেকে তৈরী করেই রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন বলে একাধিক সূত্র মনে করছে।

রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন কিনা মুঠোফোনে জানতে চাইলে বিদিশা পূর্বপশ্চিমকে বলেন, ‘আমি আগেও রাজনীতিতে ছিলাম, এখনো আছি।  আমি কিছুটা অন্যভাবে আসতে চাই। সামনে যা হবে তাতো জানবেনই’।

নীরবতা ভেঙে বিদিশার বেরিয়ে আসা বিভিন্ন দলের ইফতার পার্টিতে যোগ দেওয়া এবং জাতীয় পার্টি (জাফর)’র চেয়ারম্যান হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির  শীর্ষ নেতারা বিষয়টি খুব একটা আমলে  না নিলেও বা অন্যভাবে বলা যায়  তারা এড়িয়ে গেলেও বিদিশাকে ঘিরে এখন ব্যাপক আলোচনা চলছে মিডিয়াপাড়া ও রাজনীতির টেবিলে

বিএনপির ইফতার আয়োজনে কাজী জাফরের জাতীয় পার্টির নেতাদের জন্য বরাদ্দকৃত টেবিলে বিদিশা বসার পর থেকে রাজনীতিবিদদের মধ্যে কৌতুহল অনেকটাই বেড়ে যায় । নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন বলেন, বিদিশাকে নিয়ে খেলা তো কেবল শুরু। সামনে আরো কি হয় দেখার অপেক্ষায় আছি।

বিদিশা জাপার চেয়ারম্যান হলে মহাসচিব কে হবেন এমন প্রশ্নে জাপার কয়েকজন  নেতা বলেন পার্টির প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকনের মহাসচিব হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী ।

কাজী জাফরের মৃত্যুর পর জাতীয় পার্টির (জাফর)   ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন ওটিএমআই ফজলে রাব্বি। তিনি বেশ কিছুদিন অসুস্থ থাকায় দলটি বিকল্প কাউকে দেখছে। আর এই বিকল্প হতে পারেন বিদিশা। জ্ঞান বুদ্ধিতে তিনি কারো চাইতে কম না বলেও এই  দলের অনেকে মনে করেন। তাই দলকে এগিয়ে নিতে তিনি যথেষ্টই ভূমিকা রাখতে পারবেন। এছাড়া একজন সক্রিয় চেয়ারম্যান হওয়ার পাশাপাশি এরশাদের কাউন্টার হিসেবে বিদিশাকেই ‘প্রথম পছন্দ’ বলে মনে করছেন দলের অনেকে। তাদের মতে বিদিশা জাফর জাপায় যোগ দিলে মঙ্গল শুধু দলেরই নয় বিদিশার নিজেরও, এতে করে অতিতে বিদিশাকে নিয়ে এরশাদের নেওয়া নানা সিদ্ধান্তের প্রতিশোধও নিতে পারবেন ।

তবে এই আলোচনা সমালোচনা এসব কিছুই এখনো চায়ের টেবিলে। রাজনীতি মহলে চাপা জিজ্ঞাসা বিদিশা কি সক্রিয় হচ্ছেন জাফর জাপা’য় চেয়ারম্যান হিসেবে। আর যদি সক্রিয় হন তাহলে এরশাদের সাথে মুখোমুখি হয়ে দলকে কিভাবে এগিয়ে নেবেন, তার কৌশল কী হবে, নাকি অতীত প্রতিশোধ নিতে মরিয়া হয়ে উঠবেন বা আবারো বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেবেন (?)। এসব কিছুর জন্য এখন শুধুই বিদিশার সিদ্ধান্তের অপেক্ষা করা ছাড়া আর কিছুই করবার নেই।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর