,



বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডপ্রধানের নাজমুল হাসানের পাশে বসেই সাকিব

বাঙালী কণ্ঠ নিউজঃ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট দিয়ে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় বারের মত বড় ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব করার স্বপ্ন দেখছিলেন বাংলাদেশের ও বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। কিন্তু সদ্যই শেষ হওয়া ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজের ফাইনালে দুর্ভাগ্য ভর করে সাকিবের উপর। আঙ্গুলের ইনজুরিতে পড়ে প্রায় দু’সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে চলে যান তিনি। ফলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে খেলতে পারছেন না সাকিব। তার পরিবর্তে দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

সিরিজের প্রথম টেস্ট খেলতে নামতে পারেননি সাকিব। কিন্তু ঠিকই চট্টগ্রামের ভেন্যুতে উপস্থিত ছিলেন সাকিব। দলের খেলা দেখতে ও সতীর্থদের উৎসাহ দিতেই আজ সকালেই চট্টগ্রামে আসেন সাকিব। পরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসানের পাশে বসেই প্রথম দিনের বেশ কিছু অংশ খেলা উপভোগ করেন সাকিব।

ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং ইনিংসের ৪১তম ওভারে প্রথম ডেলিভারিতে এক্সট্রা কভারে ফিল্ডিং করতে গিয়ে বাঁ-হাতে আঙ্গুলে ব্যাথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন সাকিব। পরে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানা যায়, অন্তত দু’সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে হবে সাকিবকে। তাই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলতে নামতে পারেননি। এমনকি দ্বিতীয় টেস্ট নিয়েও রয়েছে শঙ্কা।
দশ বছর পর দেশের মাটিতে টেস্টে নেই দশ বছর পর দেশের মাটিতে বাংলাদেশের কোনো টেস্ট ম্যাচে নেই দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সদ্যই শেষ হওয়া ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে আঙ্গুলের ইনজুরিতে পড়েন সাকিব। তাই আজ থেকে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দু’ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে খেলার সুযোগ পাননি তিনি। ফলে ক্যারিয়ারে দশ বছর পর দেশের মাটিতে বাংলাদেশের কোন টেস্টে খেলতে পারছেন না সাকিব।

২০০৭ সালের মে মাসে এই ভেন্যুতেই টেস্ট অভিষেক হয়েছিলো সাকিবের। ঐ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিলো ভারত। এরপর ঢাকাতে ঐ সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টেও অংশ নিয়েছিলেন সাকিব। পরবর্তীতে শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডে টেস্ট খেলার পর ২০০৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারিতে আবারো দেশের মাটিতে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করেন সাকিব। ঐ ম্যাচের পর দেশের মাটিতে বাংলাদেশের সবগুলো টেস্টই খেলেছিলেন সাকিব।

কিন্তু আজ থেকে শুরু হওয়া দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে খেলতে পারছেন না সাকিব। তাই প্রায় ১০ বছর পর দেশের মাটিতে বাংলাদেশের কোন টেস্টের একাদশে নেই সাকিব। বাংলাদেশের হয়ে এখন পর্যন্ত ৫১টি টেস্ট খেলেছেন সাকিব। এরমধ্যে দেশের মাটিতেই ৩৪টি ম্যাচ খেলেন তিনি। ৬২ ইনিংসে ২টি সেঞ্চুরি ও ১৫টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ২৩০৭ রান করেছেন সাকিব। যা বাংলাদেশীদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। দেশের মাটিতে সবচেয়ে রান রয়েছে তামিম ইকবালের। ৩৩ ম্যাচের ৬২ ইনিংসে ২৪২৯ রান তামিমের।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর