,



ওলামা লীগ আওয়ামী লীগের বিষফোঁড়া

সরকার বৈশাখী বোনাস চালু করলেও বর্ষবরণের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধের দাবি করে বাঙালি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে ওলামা লীগ। তাদের দাবি, ভারতপন্থী তকমা ফেরাতেই তারা আওয়ামী লীগের হয়ে কাজ করছে। আলোচনা-সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি আওয়ামী লীগের দু’জন দায়িত্বশীল নেতা প্রকাশ্যে বলেছেন, ওলামা লীগ আওয়ামী লীগের কেউ নয়। তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নেই। কিন্তু ওলামা লীগের নেতারা আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্ততা দাবি করেই যাচ্ছেন। সংগঠনটির বক্তৃতা-বিবৃতি, মানববন্ধন ও সমাবেশে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রায়ই দেখা যাওয়ায় সাধারণ মানুষ মনে করছে ওলামা লীগ আওয়ামী লীগেরই অঙ্গ বা সহযোগী সংগঠন। অনুসন্ধান ও পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, উদার, গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার রাজনৈতিক দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিষফোঁড়া ওলামা লীগ। একাধিক ইস্যুতে আওয়ামী লীগের আদর্শবিরোধী অবস্থান নিয়েছে সংগঠনটি। যেখানে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবারই প্রথম বৈশাখী বোনাস চালু করেছেন, সেখানে ৯ এপ্রিল সংগঠনটি বর্ষবরণের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধের দাবি করেছে। এমনকি বৈশাখী বোনাস বাতিল করে তা ঈদে মিলাদুন্নবীতে দেয়ার দাবি করে সংগঠনটি। এর আগে সরকারের প্রণীত নারীনীতি ও শিক্ষানীতির প্রকাশ্য বিরোধিতা করে সংগঠনটি। ‘জাতীয় শিক্ষানীতি’কে ‘ইসলামবিদ্বেষী’ অ্যাখ্যা দিয়ে এটি সংশোধনের দাবি জানায় তারা। একটি অনুষ্ঠানে ওলামা লীগের নেতারা বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী আওয়ামী লীগের কাঁধে চড়ে তার নাস্তিক্যবাদী শিক্ষা দর্শন ৯৮ ভাগ মুসলমানের ওপর চাপিয়ে দিচ্ছে।’ বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন ‘অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন’ বাতিল করার দাবিও জানায় সংগঠনটি।
সংগঠনটির এসব কর্মকাণ্ডের ভিত্তিতে ১১ এপ্রিল ‘জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা প্রতিরোধ মোর্চা’র একটি সমাবেশ থেকে ওলামা লীগের সঙ্গে আওয়ামী লীগের আদৌ কোনো সম্পর্ক আছে কিনা তা স্পষ্ট করার আহ্বান জানানো হয়। পাশাপাশি বিভিন্ন মহলের সমালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ ১৩ এপ্রিল বিভিন্ন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ওলামা লীগের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নেই।’ পরদিন দলটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ একটি অনুষ্ঠানে বলেন, ‘ওলামা লীগ আওয়ামী লীগের কেউ নয়।’ কিন্তু ওলামা লীগের সক্রিয় দুই অংশের নেতারাই দাবি করছেন, তারা আওয়ামী লীগের হয়ে কাজ করছেন। মিটিং-মিছিল, জনসভা, সমাবেশসহ আন্দোলনেও আওয়ামী লীগের সঙ্গে শরিক ছিলেন। এর এক অংশের সাধারণ সম্পাদক শেখ আবু হাসান শরীয়তপুরী যুগান্তরকে বলেন, তারা আওয়ামী লীগ আদর্শে বিশ্বাসী। বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের সঙ্গে আন্দোলন করেছেন। আওয়ামী লীগের একজন উপদেষ্টা, প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এবং ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আবু আবদুল্লার সঙ্গে তাদের একাধিক বিষয়ে যোগাযোগ রয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন। এছাড়া তারা প্রধানমন্ত্রীর ইফতার অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পেয়ে অংশও নেন বলে উল্লেখ করেন ওলামা লীগের একাংশের এই নেতা। হেফাজতের ধ্বংসযজ্ঞের সময় আওয়ামী লীগের ওই উপদেষ্টার বাসায় বৈঠকে তিনি উপস্থিত ছিলেন বলে দাবি করেন।
শরীয়তপুরীর সরবরাহ করা কিছু ছবিতে ২০০৬ সালে তাকে ও তার সংগঠনের নেতাদের প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা জিল্লুর রহমান এবং আবদুল জলিলের পেছনে দণ্ডায়মান দেখতে পাওয়া যায়। বৃহস্পতিবার একটি ইংরেজি দৈনিকে ছাপানো ছবিতে দেখা যায়, আওয়ামী লীগের একজন দায়িত্বশীল নেতা ওলামা লীগের শরীয়তপুরী অংশের মানববন্ধনে অংশ নিয়েছেন।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে মাহবুবউল আলম হানিফ, ড. হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আবু আবদুল্লাহ, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এক বাক্যে বলেন, ওলামা লীগের সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পর্ক নেই। মাহবুবউল আলম হানিফ যুগান্তরকে বলেন, ঐতিহ্যবাহী ও এ দেশের প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে ওলামী লীগ নামের কোনো সংগঠনের সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই। ড. হাছান মাহমুদও একই কথা বলেন। আফম বাহাউদ্দিন নাছিম যুগান্তরকে বলেন, আওয়ামী লীগ আপাদমস্তক অসাম্প্রদায়িক দল। ওলামা লীগ নামে যে সংগঠন আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পৃক্ততা দাবি করছে, তারা আওয়ামী লীগের আদর্শে বিশ্বাসী নয়। এটি আওয়ামী লীগ স্বীকৃত কোনো সংগঠনও নয়। কেউ কোথাও থেকে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সম্পর্ক আছে দাবি করলেই সেটা সত্যি হয়ে যায় না। আর ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আবু আবদুল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, একসময় শেখ আবু হাসান শরীয়তপুরী তার কাছে এসেছিলেন। তিনি শরিয়তপুরীর কথা শোনেন কিন্তু এরপর আর কখনও তিনি তাদের সাক্ষাৎ দেননি। বুদ্ধি-পরামর্শ দেয়ার প্রশ্নই আসে না। ওলামা লীগের সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই বলে জানান তিনি। আর দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ ওলামা লীগের এমন দাবিকে ফালতু কথা বলে উড়িয়ে দেন। উল্লিখিত নেতারা বলেন, যে সংগঠন আওয়ামী লীগের কেউ নয়, তাদের নিয়ে তাদের মাথাব্যথাও নেই। তাই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও কিছু নেই। ওলামা লীগের আরেকাংশের সভাপতি ইসমাইল হোসেন বিন হেলালী এক-এগারোর প্রেক্ষাপটে আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে সক্রিয় থাকার দাবি করেন।
তিনি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং দুর্যোগ ও ত্রাণ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার নাম উল্লেখ করে তাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করতে বলেন। এ বিষয়ে মন্তব্যের জন্য ফোন করলে মায়া বলেন, তিনি ফোনে কোনো বক্তব্য দেবেন না। তবে তিনি ওলামা লীগের সঙ্গে সস্পর্কের কথা অস্বীকার করেন। ওলামা লীগের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড বিভিন্ন মহলে সমালোচনার জন্ম দেয়। একাধিক সংগঠন সমাবেশ করে ওলামা লীগের বক্তব্যের প্রতিবাদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগকে এ নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করার আহ্বান জানায়। এক কলাম লেখক লেখেন, ‘আওয়ামী লীগ কি ওলামা লীগের অসহযোগী সংগঠন’? তাছাড়া ওলামা লীগের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও তদবিরসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এদিকে ওলামা লীগের ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, স্বাধীনতা-পূর্ববর্তী সময়েই ওলামা-মাশায়েখদের সংগঠিত করতে ‘আওয়ামী ওলামা পার্টি’ নামের একটি সংগঠন জন্ম নেয়, যা মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে সরকারকে ইসলামী ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করে। কিন্তু পরবর্তীকালে এটি নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়। তবে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের আন্দোলনের সময় ওলামা লীগ নামে পুনঃপ্রতিষ্ঠা হয় বলে আবু হাসান শরীয়তপুরী দাবি করেন। বিভিন্ন সময়ে এই সংগঠনের সঙ্গে মাওলানা হাবিবুল্লাহ কাঁচপুরী, মাওলানা ইসমাইল হোসেন নামের বেশ কিছু ব্যক্তির সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর