,



জাতীয় প্রেস ক্লাবের নির্বাচন, চলছে ভোটগ্রহণ

বাঙালী কণ্ঠ নিউজঃ জাতীয় প্রেস ক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার (১৮ ডিসেম্বর) সকাল ৯টা থেকে শুরু হওয়া এ নির্বাচন বিরতিহীনভাবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলবে। এ নির্বাচনে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের ১৭টি পদে ৪৪ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটার ১ হাজার ২১২ জন। এবারের নির্বাচনে ক্লাবের বর্তমান সিনিয়র সহ-সভাপতি সাইফুল আলমের নেতৃত্বে সাইফুল-ফরিদা এবং শওকত মাহমুদের নেতৃত্বে শওকত-ইলিয়াস নামে দুটি পূর্ণাঙ্গ প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

এছাড়াও প্যানেলের বাইরে ১০ জন বিভিন্ন পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যারা ভোটের মাধ্যমে বিজয়ী হবে তারাই আগামী ২ বছর জাতীয় প্রেস ক্লাবের নেতৃত্ব দেবে।

নির্বাচন উপলক্ষে প্রেস ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক শাহ আলমগীরকে চেয়ারম্যান করে ৫ সদস্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি করা হয়েছে। অন্য সদস্যরা হলেন-মো. মোস্তফা-ই-জামিল, এসএএম শওকত হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান ও উদয় হাকিম।

এবার নির্বাচনে সভাপতি পদে লড়ছেন দুজন। এরা হলেন যুগান্তর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম এবং সিনিয়র সাংবাদিক শওকত মাহমুদ।

সিনিয়র সহ-সভাপতির একটি পদের জন্য লড়ছেন সিনিয়র সাংবাদিক কার্তিক চ্যাটার্জি, মো. ওমর ফারুক এবং সৈয়দ মেসবাহ উদ্দিন।

সহ-সভাপতির পদ একটি। এজন্য লড়ছেন বাংলাদেশের খবরের আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া ও সিনিয়র সাংবাদিক নূরুল হাসান খান।

সাধারণ সম্পাদক পদটির জন্য লড়ছেন সিনিয়র সাংবাদিক ফরিদা ইয়াসমিন, কামরুল ইসলাম চৌধুরী এবং ইলিয়াস খান।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দুটি পদ। এ পদের জন্য প্রদিদ্বন্দ্বিতা করছেন সিনিয়র সাংবাদিক আবু সালেহ আকন, মাঈনুল আলম, মো. আশরাফ আলী, শাহেদ চৌধুরী এবং সাখাওয়াত হোসেন বাদশা।

কোষাধ্যক্ষ পদের লড়াইয়ে আছেন সিনিয়র সাংবাদিক কাজী রওনাক হোসেন, শ্যামল দত্ত এবং জহিরুল হক রানা।

প্রেসক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য পদ মোট ১০টি। এই ১০ পদের জন্য লড়ছেন ২৬ জন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন: সিনিয়র সাংবাদিক কুদ্দুস আফ্রাদ, মোঃ আইয়ুব ভূঁইয়া, কাজী রফিক, কল্যান সাহা, রেজওয়ানুল হক, জাহিদুজ্জামান ফারুক, শামসুদ্দিন আহমেদ চারু, রহমান মোস্তাফিজ, শাহনাজ সিদ্দিকী, জহিরুল হক টুকু, আনিসুর রহমান খান, শাহনাজ বেগম, আলী হাবীব, ইব্রাহিম খলিল খোকন, জীভন ইসলাম, দেলোয়ার হোসেন, নির্মল চক্রবর্তী, বখতিয়ার রানা, মোঃ আজিজুর রহমান, মো. মমিন হোসেন, মো. সানাউল হক, শামসুল হক দূররানী, শাহনাজ বেগম, সাঈদুল হোসেন সাহেদ, হাসান আরেফিন এবং সৈয়দ ফয়সাল আহমেদ।

এদিকে সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ২২তম দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভা ক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন ক্লাব সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান। সভা পরিচালনা করেন ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাইফুল আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক, ক্লাবের স্থায়ী ও সহযোগী সদস্যরা। সভায় সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন ও কোষাধ্যক্ষ কার্তিক চ্যাটার্জি পৃথক প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। পরে ক্লাব সদস্যদের সর্বসম্মতিক্রমে তা পাস হয়।

সভাপতির বক্তব্যে শফিকুর রহমান বলেন, ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে কুক্ষিগত প্রেস ক্লাবকে উদ্ধার করতে আন্দোলন করে আসছি। ২০০৫ সাল থেকে ক্লাবের জমি সরকারের হাতে চলে যায়। যেটি আবার উদ্ধার করেছি। কুক্ষিগত এ ক্লাব উদ্ধারসহ উন্নয়নে আমি নিজ থেকে লাখ লাখ টাকা খরচ করেছি। আমাদের সবার জন্য। আজ অনেক উন্নয়ন হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। ক্লাবের জমিতে ৩১ তলা বিশিষ্ট অত্যাধুনিক বঙ্গবন্ধু মিডিয়া কমপ্লেক্স নির্মাণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এজন্য ক্লাবের জমির লিজ বরাদ্দ নিয়ে যে জটিলতা ছিল, তা নিরসন করা হয়েছে। আশা করছি, নতুন নির্বাচিত কমিটি ক্লাব সদস্যদের স্বপ্নের মিডিয়া কমপ্লেক্স নির্মাণকাজ শুরু করে এগিয়ে নিয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বঙ্গবন্ধু মিডিয়া কমপ্লেক্স’ নির্মাণসহ বিদ্যমান ভবনের সংস্কারকাজে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছেন বলেও জানান তিনি।

ফরিদা ইয়াসমিন তার প্রতিবেদনে বলেন, ক্লাবের বর্তমান সদস্য সংখ্যা ১ হাজার ২৯২। এর মধ্যে স্থায়ী ১ হাজার ২২১ ও সহযোগী সদস্য ৭১ জন। নির্বাচনের পর নতুন সদস্য পদ দেয়ার বিষয়টি অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

চলতি বছর সামাজিক সমাবেশ (হাউজি) খাতে আয় হয়েছে ১ কোটি ২ লাখ ২৪ হাজার ৫৮ টাকা। যা গত বছর ছিল ১ কোটি ১৪ লাখ ১১ হাজার ৫২৬ টাকা। তবে ৪ দিন হাউজি বন্ধ না হলে আয় আরও বাড়ত।

এ বছর নিট আয় হয়েছে ১ লাখ ৫১ হাজার ৮৮৪ টাকা। সদস্য চাঁদা পাওয়া গেছে ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৩৮০ টাকা। তিনি বলেন, প্রেস ক্লাবের ৪টি রুমের নাম হবে ৪ সাংবাদিকের নামে। এখানে খেলাধুলা ও জিমনেশিয়াম হচ্ছে। অনেক সরঞ্জাম ইতিমধ্যে চলে এসেছে। সব সাংবাদিকের ডাটাবেস হয়েছে। তাদের ইন্স্যুরেন্সের কাজও শিগগিরই শুরু হবে।

সাধারণ সম্পাদকের প্রতিবেদনের ভূয়সী প্রশংসা করেন ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, যখন আমরা ফরিদা আপাকে নির্বাচিত করি, তখন ভাবছিলাম কিভাবে চলবে। বিমান কোন দিকে যাবে। আজ তিনি বিস্ময় সৃষ্টি করেছেন। ক্লাবের আধুনিকায়ন ও উন্নয়নে তিনি বড় ভূমিকা পালন করেছেন।

সাধারণ সভায় প্রেস ক্লাবের সদস্য প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, সিনিয়র সাংবাদিক জাহিদুজ্জামান ফারুক, সাইফুল ইসলাম, তরুণ তপন চক্রবর্তী, শুক্কুর আলী শুভ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সূত্রঃ আলোকিত বাংলাদেশ

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর