,



প্রতিশোধের আগুনে জ্বলছে ইরান

বাঙালী কণ্ঠ নিউজঃ ইরানের সিস্তান-বেলুচিস্তান প্রদেশে আইআরজিসি সদস্যদের উপরে ভয়াবহ আঘাতী বোমা হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। একইসঙ্গে এ হামলার সঙ্গে জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের প্রতিশ্র“তিও দিয়েছেন তিনি। হামলার পর বৃহস্পতিবার তার নিজস্ব ওয়েবসাইটে এ বিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন রুহানি। বুধবার রাতের ওই হামলায় নিহত হয়েছেন অন্তত ২৭ আইআরজিসি সদস্য। এর দায় স্বীকার করেছে ওহাবিপন্থী উগ্র সংগঠন জেইশে জুলম।

বিবৃতিতে রুহানি বলেন, যারা এই হামলার সঙ্গে যুক্ত ও যারা এর নির্দেশ দিয়েছে তাদের সবাইকে উপযুক্ত শাস্তি দেয়া হবে, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। যুক্তরাষ্ট্র ও মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন মিত্র রাষ্ট্রদের প্রতি ইঙ্গিত তুলে রুহানি বলেন, সন্ত্রাসের পেছনে পৃষ্ঠপোষকতার ইতিহাসে এই হামলা আরেকটি লজ্জ্বা হিসেবে থেকে যাবে। রাশিয়ার সোচিতে এক বৈঠকের জন্য যাওয়ার পূর্বে রুহানি বার্তা সংস্থা ইরনার সাংবাদিকদের বলেন, শহিদদের রক্তের মূল্য জড়িতদের দিতেই হবে। পাশাপাশি, ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনি এ হামলার জন্য পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাকে দায়ী করেছেন। এর মাধ্যমে সৌদি আরব ও ইসরাইলের প্রতি আঙুল তুললেন।

তিনি সামরিক বাহিনীকে এ বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। হামলার পর সিস্তান-বেলুচিস্তানের গভর্নর নিহতদের সম্মানে প্রদেশটিতে ৩ দিনের শোক ঘোষণা করেছেন। এদিকে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের মুখপাত্র বাহরাম ঘাসেমি হামলার পর এক বিবৃতিতে বলেন, এর প্রতিশোধ ইরান নেবেই।
হামলার পর আইআরজিসি কমান্ডার মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আলী জাফারি ইরান সীমান্তবর্তী এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে পাকিস্তানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

জেনারেল জাফারি বলেন, পাকিস্তান সরকার, দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীগুলো এবং সেনাবাহিনী দু’দেশের যৌথ সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করবে বলে তেহরান আশা করছে। সন্ত্রাসীরা ইরান ও পাকিস্তান উভয় দেশের শত্রু। কাজেই তারা যাতে মাথাচারা দিয়ে উঠতে না পারে সেজন্য তেহরান ও ইসলামাবাদকে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর