,



মামলা জট কমাতে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কার্যকর ভূমিকা রাখবে

মামলা জট কমাতে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি (এডিআর) পদ্ধতি কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন। তিনি বলেছেন, বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতি কার্যকর করা হলে দেওয়ানি মামলা নিরসন করা সম্ভব হবে। ফলে আদালতের মামলার জট কমে আসবে।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের এক যুগপূর্তি উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতি কার্যকর করার জন্য দেওয়ানি কার্যবিধি সংশোধন করা হয়। কিন্তু এর (সংশোধনী) কার্যকর প্রয়োগ নেই। এটা কার্যকর করা গেলে মামলার জট কমবে। সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা, অসহায়দের আইনি সেবা দেয়ার মাধ্যমে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে আইনজীবীদের ভূমিকা রাখতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রশাসন ও বিচার বিভাগের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠার জন্য নাগরিকের আইনের শাসন, মৌলিক মানবাধিকার রক্ষায় হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ কাজ করে যাবে প্রত্যাশা করি।’

সাবেক এই প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি যখন প্রধান বিচারপতি ছিলাম তখন আমি অসহায়ত্ববোধ করতাম যে সুপ্রিম কোর্টের নামে এক ইঞ্চিও জমি নেই। আমি দেখতাম যে সুপ্রিম কোর্টের পায়ের নীচে মাটি নেই। কিন্তু এইচআরপিবির মামলার কারণে সুপ্রিম কোর্ট নিজস্ব জমি ফিরে পেয়েছে। এ মামলায় আপিল বিভাগে রায় লিখতে গিয়ে বিচার বিভাগের ইতিহাস দেখেছি।’

জনস্বার্থমূলক কার্যক্রমে বিশেষ করে অসহায়দের পক্ষে আইনি লড়াই চালিয়ে যেতে আইনজীবীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী বলেন, `হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ’ সংগঠনটি আজ একটি পাইওনিয়ার সংগঠনে রুপান্তরিত হয়েছে। এই সংগঠনের কার্যকর ভূমিকার কারণে ঢাকার চারপাশের নদ-নদীগুলো অবৈধ দখলদারের হাত থেকে অনেকাংশে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।’

সুপ্রিম কোর্টের জায়গা উদ্ধার, ফুটপাতের অবৈধ স্থাপনা, পরিবেশে রক্ষাসহ জনস্বার্থ রক্ষায় সংগঠনটি বিপ্লাত্বক ভূমিকা পালন করেছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সংগঠনটির চেয়ারম্যান মঞ্জিল মোরশেদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর