,



১৮ বছর পর মামলা থেকে অব্যাহতি পেয়ে যা বললেন বাবলু শেখ

দীর্ঘ ১৮ বছর পর মামলা থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন নাটোরের সিংড়া উপজেলার আঁচলকোট গ্রামের বাসিন্দা বাবলু শেখ। আজ বৃহস্পতিবার মামলা থেকে অব্যাহতির পরপরই গণমাধ্যমের কাছে নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন তিনি।

বাবলু শেখ বলেন, ‘১৮ বছর পর আদালত আমাকে অব্যাহতি দিয়েছে। আমি এতে চরম খুশি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার আইনজীবী আমার সামনে আছে। পাশে আমার ভাই-বন্ধুরাও আছেন তাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। এ ছাড়া যমুনা টেলিভিশনের কাছেও আমি কৃতজ্ঞ।’

অপরাধ না করেও পুলিশ আর আইনজীবীর ভুলে আসামি হয়ে দুইমাস কারাভোগ করাসহ ১৮ বছর ধরে আদালতের বারান্দায় ঘুরতে থাকা বাবলু শেখকে মামলা থেকে অব্যাহতির আদেশ দেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সাইফুর রহমান সিদ্দিকীর আদালত এ আদেশ দেন।

আদেশে বাবলু শেখকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া এ ঘটনায় দায়ী তদন্তকারী দুই পুলিশ ও তৎকালীন ওসির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আইজিপিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি দায়ী আইনজীবীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আইনজীবী সমিতিকেও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এদিকে মামলা থেকে অব্যাহতির পর অনেক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা ফুল দিয়ে বাবলু শেখকে অভ্যর্থনা জানান। এ ছাড়া নাটোরের জেলা প্রশাসক বাবলু শেখকে ঘর বানিয়ে দেওয়াসহ সবসময় তার পাশে আছেন বলে জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালের ১৫ এপ্রিল নাটোর সদর উপজেলার গাঙ্গইল গ্রামে একটি মারামারির মামলার আসামি শ্রী বাবুর পরিবর্তে আঁচলকোট গ্রামের বাবলু শেখকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। এরপর তৎকালীন আইনজীবী লুৎফর রহমান বাবু শ্রী বাবু নামেই বাবলু শেখের জামিন করান। সেই থেকে বাবলু শেখ হয়ে যান শ্রী বাবু।

দু’দফায় দুমাস কারাভোগের পর ১৮ বছর ধরে হতদরিদ্র বাবলু শেখ নিজের সঠিক পরিচয় জানাতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আদালতের বারান্দায়। এ নিয়ে গত ১৮ ও ২০ সেপ্টেম্বর দেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশনে দুটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রচার হলে তা ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। পরে বাবলু শেখের পাশে দাঁড়ায় আইনজীবী ও জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের মানুষ।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর