,



দক্ষ জনশক্তি উন্নয়ণে মানবসম্পদ নীতিমালা করল সরকার

দক্ষ মানবসম্পদ উন্নয়নে জাতীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন তহবীল ব্যবহার নীতিমালা ২০১৯ অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার (৪ নভেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার কার্যালয় তার সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের সভায় এই নীতিমালার অনুমোদন দেওয়া হয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, দক্ষ জনশক্তি একটি জাতির সামাজিক অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য অপরিহার্য। একারণে দেশের ক্রমোবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়ণ এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে শ্রমবাজারের ক্রমবর্ধমান চাহিদার লক্ষে দক্ষ জনশক্তি সৃজনের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এই নীতিমালার উদ্যোগ নেয়।

তিনি বলেন, জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ণ কর্তপক্ষ দক্ষতার উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম গবেষণা সমিক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রে আর্থিক অনুদান প্রদান করবে। এক্ষেত্রে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানের আবেদন যাচাই বাছাই পূর্বক নিশ্পত্তি করার দায়িত্ব পালন করবে এবং জাতীয় মানবসম্পদ উন্নয়ণ তহবিল কোম্পানীকে প্রত্যাশী প্রতিষ্ঠান অর্থ অনুদান প্রদানের জন্য অনুরোধ জানাবে।

তিনি জানান, ইতোমধ্যে অর্থবিভাগ জাতীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন তহবিল নামে একটি কোম্পানী গঠন করেছে। আর এই প্রস্তাবিত নীতিমালা জাতীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন তহবিল হতে অর্থ বরাদ্দের জন্য যোগ্য প্রতিষ্ঠান অথবা কার্যাক্রম বা প্রশিক্ষন প্রদানকারীদের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় কাজ করবে। অর্থ বরাদ্দ, প্রাপ্তি, প্রতিষ্ঠান সমুহের যোগ্যতা নির্ধারণ, প্রশিক্ষনার্থীকে উপবৃত্তি প্রদানের মানদন্ড, দক্ষতা উন্নয়ন সম্পর্কিত গবেষনা, সমিক্ষা ও উদ্ভাবন কাজে নিয়োজিত ব্যাক্তি প্রতিষ্ঠান এবং তহবিলের জন্য আবেদন প্রক্রিয়াকরণ তহবিলের জন্য দাখিলকৃত আবেদন নাকচকরণ পরিবিক্ষন ও মূল্যায়ণ ইত্যাদির যথাযথ মূল্যায়ণে এই নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই তহবিল সুষ্ঠভাবে ব্যবহারের মাধ্যমে দেশের বিপুল জনগোষ্টিকে দক্ষ জনশক্তিকে রুপান্তরিত করার চলমান প্রক্রিয়া আরও বেগবান হবে। এতে বেকার সমস্যা নিরসন হবে এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত হবে। এই নীতি অনুসরন করে অর্থ বরাদ্দ ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে অধিকতর সচ্ছতা ও জবাদীহিতা প্রতিষ্ঠা হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর