,



করোনার সংক্রমণ রোধে মালয়েশিয়ায় গৃহবন্দি ৬ লাখ বাংলাদেশি

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ করোনার সংক্রমণ রোধে এই মুহূর্তে পুরো বিশ্ব থেকে নিজেদের বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে মালয়েশিয়া। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ অবস্থা চলতে থাকবে। এই সময়ের মধ্যে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে লকডাউনের সময়কাল আরো বাড়তে পারে।
গতদিনে দেশটিতে আরো ১১০ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৯০০ জনে। এছাড়া ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়ে এখন পর্যন্ত সেখানে ২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।
এমন পরিস্থিতিতে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত প্রায় ৬ লক্ষ বাংলাদেশি গৃহবন্দি অবস্থায় আছেন। তবে কোনো বাংলাদেশি এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হননি। তারপরও সেখানে সংক্রমণের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন প্রবাসীরা।
এর আগে গত ১৮ মার্চ থেকে নিজেদের পুরো লকডাউন করে নেয় মালয়েশিয়া। ফলে সেখানকার রাস্তাঘাট এখন জনশূন্য, সব জায়গায় সুনসান নীরবতা। কোথাও কেউ নেই। রাস্তাঘাটে নিরাপত্তাকর্মী ছাড়া মাঝেমধ্যে দুই একজনকে দেখা যায়।
একের পর এক বন্ধ হচ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। শুধু হাসপাতাল, ফার্মেসি ও সুপারশপ খোলা রয়েছে। আর বাকি সবকিছুই বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বেশি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এ নির্দেশ অমান্য করলে জেল-জরিমানার ব্যবস্থাও আছে।
এদিকে লকডাউনের সময় শ্রমিকদের বেতন যেন বন্ধ না হয় সেজন্য কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়। এক ঘোষণায় মানবসম্পদ মন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান বলেন, দেশ লকডাউন হলেও শ্রমিকদের বেতন পাওয়ার অধিকার রয়েছে। তাই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের বেতন পরিশোধ করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর