,



আজ নেপালে যাচ্ছে ফুটবল দল

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ মুখে মুখে বলছে নেপালে তিন জাতির টুর্নামেন্টে দলগোছানোর দিকে নজর দেওয়া হবে। আর কান পাতলে শোনা যায়, ট্রফি জয় করতে আজ নেপাল যাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল দল। তিন জাতির টুর্নামেন্ট স্বাগতিক নেপাল ছাড়াও আছে কিরগিস্তান অলিম্পিক ফুটবল দল। বাংলাদেশ নিজেদের ফেভারিট মনে করতেই পারে। নেপালের বিপক্ষে সর্বশেষ ঢাকায় করোনা কালেই দুই ম্যাচের সিরিজ জিতেছিল বাংলাদেশ। মানসিক ভাবে এগিয়ে থাকবেন সুফিল, মতিন, বিশ্বনাথ, জিকো, সোহেল রানা, রহমত মিয়া, সাদ উদ্দিনরা।

কোচ জেমি ডে মুখে মুখে বলছেন, তিনি চ্যাম্পিয়ন হতে যাচ্ছেন না। মুখে না বললেও চ্যাম্পিয়নের লক্ষ্য নিয়েই তিনি নেপালে যাবেন সেটা তার কথায় বুঝা যায়। সোহেল রানা কোচের কথাগুলো কাল সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এভাবেই বললেন, ‘কোচ বলেছেন ট্রফি জিততে পারলে ভালো, না পারলে ক্ষতি নেই। প্লেয়ারদের মধ্যে এমনটা কাজ করে না। ব্যক্তিগতভাবে যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন তাহলে আমি বলব, যেহেতু টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছি, অবশ্যই আমরা চাইব ট্রফিটা দেশে নিয়ে আসতে। তবে যত ভালো টিমই হোক কেউ অতিআত্মবিশ্বাসী হয়ে বলতে পারবে না যে, ট্রফি জিততে পারব। কিন্তু আমরা চাই। আর কোচ যেটা বলছেন উনার টার্গেট বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব নিয়ে। আর আমাদের দলে বর্তমানে নতুন খেলোয়াড় আছে, তাদেরকে দেখার দরকার আছে। দুইটা মিলিয়ে কোচের পরিকল্পনা অনুযায়ী টিম করবে এবং তার পরিকল্পনা অনুযায়ী দল খেলবে। আর আমরা খেলোয়াড়রা চাই যে, ভালোভাবে টুর্নামেন্ট শুরু করি এবং ট্রফি নিয়ে আসতে চাই।’

কোচ ট্রফি নিয়ে ভাবনার কথা বলতে গিয়ে বলেছেন, ‘নেপালের বিপক্ষে আমরা সিরিজ জিতেছি। কেউ মনে রাখেনি। আমরা যদি নেপালে গিয়ে ট্রফি জয় করে ঢাকায় ফিরে আসি সেটি ৬ মাস মনে থাকবে। আর জুনে কাতারে গিয়ে ভালো করতে না পারলে সেটি নিয়ে বেশি আলোচনা হবে। মন্দের পাশাপাশি ভালোটাও আলোচনায় থাকতে পারে। আমরা জুনে কাতারে তিন ম্যাচ নিয়ে ভাবছি।’

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে গতকাল শেষবারের অনুশীলন হয়ে গেছে। সোহেল রানা বললেন, ‘যেহেতু লম্বা সময় আমরা লিগ খেলেছি, তাই কোচ রিকোভারিতে নজর দিচ্ছে। মূলত পাসিং, ফিনিশিং এবং ডিফেন্ডিং প্র্যাকটিস হয়েছে। নেপালে গিয়ে ট্যাকটিক্যালি এবং প্রতিপক্ষ দলের শক্তি-দুর্বল পয়েন্টগুলো নিয়ে কাজ করবেন।’

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর