,



অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাতে ঝুঁকি নেই, ফের কার্যক্রম শুরু ইউরোপে

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকায় ঝুঁকির চেয়ে উপকার অনেক বেশি বলে আবারও আশ্বস্ত করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং যুক্তরাজ্যের নীতিনির্ধারকরা। ইতিমধ্যে এই টিকার প্রদান কার্যক্রম ফের শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালির মতো দেশগুলো। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ডয়েচে ভেলে।

সম্প্রতি এই টিকা গ্রহণের পর বেশ কয়েকজনের দেহে রক্তজমাট বাঁধার খবরে এক ডজনেরও বেশি রাষ্ট্রে এর ব্যবহার স্থগিত ঘোষণা করা হয়। এরপর বিষয়টি নিয়ে পর্যবেক্ষণে নামে দ্য ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) এর আওতাধীন সেফটি কমিটি। পর্যবেক্ষণ শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) আশার বাণী শোনালো তারা।

ইএমএ এর পরিচালক ইমার কুক জানান, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিরাপদ। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে এটি মানুষকে রক্ষা করতে সক্ষম। এই টিকার উপকারিতা অনেক।

এরপর এক টুইটে সংস্থাটি জানায়, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা গ্রহণের কারণে তাদের দেহেই রক্ত জমাটের ঘটনা ঘটেছে যাদের রক্তে প্লাটিলেট কম। যদিও এই ঘটনা বিরল। অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার কার্যকারিতা ও উপকারিতা অনেক বেশি। তাই এই টিকা কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে।

ইএমএ ইউরোপীয় অর্থনৈতিক অঞ্চলে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নেওয়া দুই কোটি মানুষের অবস্থা পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই অঞ্চলে যুক্তরাজ্যসহ মোট ৩০টি দেশ রয়েছে। নিরাপত্তা শঙ্কায় গত কয়েক দিনে অন্তত ১৩টি দেশ অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকার ব্যবহার স্থগিত করেছে।

যুক্তরাজ্যের ওধুষ ও স্বাস্থ্যসেবা পণ্য নিয়ন্ত্রক সংস্থা (এমএইচআরএ) অবশ্য আগেই জানিয়েছে, তারা দেশটিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নেওয়া ১ কোটি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে পাঁচজনের মস্তিষ্কে রক্তজমাট বাঁধার খবরের বিষয়টি তদন্ত করছে। পাশাপাশি সংস্থাটি এটা বলেছে, এই টিকার ব্যবহার অব্যাহত রাখা উচিত।

যুক্তরাজ্যের গবেষকদের পর ইউরোপীয় ওষুধ সংস্থার কাছ থেকেও আশ্বাস পাওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই জার্মানি ঘোষণা দিয়েছে, তারা আজ শুক্রবার সকাল থেকেই অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাদান কর্মসূচি আবারও শুরু করবে।

ফ্রান্সও বলেছে একই কথা। ফরাসি প্রধানমন্ত্রী জ্যঁ ক্যাসেক্স বলেছেন, তিনি নিজেই শুক্রবার বিকেলে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিতে পারেন।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি বলেছেন, ইতালি অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাদান আবারও শুরু করবে। তার সরকার দেশটির যত বেশি সম্ভব মানুষকে দ্রুততম সময়ে টিকাদানে অগ্রাধিকার দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর