,



কুড়িগ্রামে পানিবন্দি ৬৫ হাজার মানুষ

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, দুধকুমর, হলহলিয়া, সোনাভরি ও জিঞ্জিরামসহ ১৬টি নদ-নদীর পানি দিনদিন বেড়েই চলেছে। পানি বৃদ্ধির ফলে নিম্নাঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যা। বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে জেলার চর ও দ্বীপচরগুলোতে বন্যার পানি হু হু করে প্রবেশ করছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৬৫ হাজার মানুষ। পানিবন্দিদের পাশে এখনো সরকারি কিংবা বেসরকারি পর্যায়ে সহযোগিতার হাত বাড়ায়নি। ফলে বানভাসি মানুষেরা পড়েছেন চরম দুর্ভোগে।  কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র নদের চিলমারী পয়েন্টে ১৬ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার দশমিক ১৪ সেন্টিমিটার কাছ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও ধরলার পানি ধরলাব্রিজ পয়েন্টে ৬ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও দুধকুমর নদীর পানি নুনখাওয়া পয়েন্টে ১৭ সেন্টিমিটার ও কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি ৪১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১ দশমিক ১৭ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নাগেশ্বরী, উলিপুর, রৌমারী, চিলমারী ও ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, নিচু এলাকায় সৃষ্ট বন্যার ফলে এই ৫ উপজেলায় প্রায় ৬ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়েছে। জেলা প্রশাসক আবু ছালেহ মো. ফেরদৌস খান জানান, এলাকার মানুষ বন্যা পরিস্থিতির সঙ্গে বহুকাল ধরে খাপ খাইয়ে আছে। এখনো আতঙ্কিত হওয়ার মতো কিছু নেই। বন্যা মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর