৬৭৮ শিক্ষককে চাকরিচ্যুতির নির্দেশ, ফেরত দিতে হবে বেতন-ভাতা

সনদ জালিয়াতি করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চাকরি নেওয়া ৬৭৮ শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একইসঙ্গে এসব শিক্ষক বেতন-ভাতা বাবদ যে অর্থ নিয়েছেন সেগুলো ফেরত ও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে  ফৌজদারি মামলাসহ সাত দফা শাস্তি কার্যকরের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ১৮ মে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও তা মঙ্গলবার প্রকাশ করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর (ডিআইএ) ইতোপূর্বে তদন্ত করে মোট ১৫৭৭ জনকে সনদ জালিয়াতির দায়ে চিহ্নিত করেছিল। তাদের মধ্যে ৬৭৮ জনের শাস্তির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বাকিদের বিষয়টি রহস্যজনক কারণে সামনে আসেনি। তবে ইতোমধ্যে তাদের বেশ কয়েকজনকে মন্ত্রণালয় ‘বেকসুর’ হিসাবে খালাস দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া  গেছে। ডিআইএ যাদের চিহ্নিত করেছিল তারা সরকারের প্রায় সাড়ে ২৬ কোটি টাকা বেতন-ভাতা হিসাবে গ্রহণ করেছে। টাকা আদায়ের জন্য তাদের প্রতিবেদনগুলোতে সুপারিশ করেছিল

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সহকারী সচিব (অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা শাখা) মো. সেলিম শিকদার স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে বলা হয়েছে, পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর যাচাই-বাছাই করে ৬৭৮ জন শিক্ষক/কর্মচারীর জাল সনদ শনাক্ত করেছে। ৮ ফেব্র“য়ারি সনদ প্রদানকারী দপ্তর প্রধান/প্রতিনিধি সমন্বয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক/কর্মচারীদের সনদের সত্যতা যাচাই পূর্বক ৬৭৮ জনের জাল সনদের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এমতাবস্থায় ৬৭৮ জন জাল সনদধারী শিক্ষক/কর্মচারীর বিরুদ্ধে সাত ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হলো।

এগুলো হচ্ছে-জাল সনদধারী শিক্ষক/কর্মচারীদের এমপিও বন্ধ এবং বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে চাকরিচ্যুত করা। অবৈধভাবে গ্রহণ করা বেতন-ভাতা সরকারি কোষাগারে ফেরত দানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা। যারা অবসরে গেছেন তাদের অবসরের সুবিধা প্রাপ্তি বাতিল করা। যারা স্বেচ্ছায় অবসর নিয়েছেন তাদের আপত্তির টাকা অধ্যক্ষ/প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে আদায় করা। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জাল সনদধারী শিক্ষক/কর্মচারীদের অবসর ভাতা/কল্যাণ ট্রাস্টের ভাতা বন্ধের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সনদধারীদের তালিকা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা। জাল সনদধারীদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধান কর্তৃক ফৌজদারি অপরাধের মামলা দায়ের। জাল সনদধারীদের নিয়োগ কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ২৫ এপ্রিল যুগান্তরে ‘জাল সনদে নিযুক্ত ১৫৭৭ : ভুয়া শিক্ষকদের পকেটে সাড়ে ২৬ কোটি টাকা’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। তাতে উল্লেখ করা হয়, ডিআইএ চিহ্নিত ১৫৭৭ জন শিক্ষকের কেউ নিবন্ধন সনদ, আবার কেউ বিভিন্ন স্তরের একাডেমিক, ডিপ্লোমা ও পেশাগত সনদ জাল করে স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসায় চাকরি নিয়েছেন। এসব শিক্ষক সরকারি কোষাগার থেকে সাড়ে ২৬ কোটি টাকা এমপিও হিসাবে নিয়েছেন। ২০১৩ সাল থেকে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রায় ১০ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তদন্ত চালিয়ে সংস্থাটি এ তথ্য বের করেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৫ সাল থেকে জাতীয় শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) মাধ্যমে সরকারি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ করছে। এর আগে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিজেরাই বিজ্ঞপ্তি দিয়ে শিক্ষক নিয়োগ করত। অবশ্য ওইসব নিয়োগ বোর্ডে সরকারি প্রতিনিধি থাকতেন। এ কারণে প্রশ্ন উঠেছে, একজন শিক্ষক নিয়োগ পাওয়ার আগে তার কাগজপত্র স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় যাচাই হওয়ার কথা।

এছাড়া এসব শিক্ষক যখন এমপিওভুক্ত হয়েছেন তখনও তাদের কাগজপত্র যাচাই হওয়ার কথা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে (মাউশি)। প্রশ্ন উঠেছে, এত কিছুর পরে কী করে জাল সনদে নিয়োগের পাশাপাশি সংশ্লিষ্টরা এমপিওভুক্ত হয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে, শিক্ষা প্রশাসনের অসাধু কর্মকর্তারা এ অপকর্মের পেছনে আছে। বিশেষ করে শিক্ষক নিবন্ধন সনদ প্রত্যয়নকারী সংস্থা এনটিআরসিএ, মাউশি এবং মন্ত্রণালয়ে একটি চক্র আছে। তারা পরস্পর যোগসাজশে একদিকে ভুয়া সনদধারীদের রক্ষা করছে। আরেকদিকে প্রয়োজনে ভুয়া সনদ পেতেও সহায়তা করছে।

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর