বিদেশি শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অভাবে র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে পড়ছে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

বিদেশী শিক্ষক-শিক্ষার্থী না থাকায় র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকছে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। দেশে একের পর এক অনুমোদন পাঁচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়, বাড়ছে উচ্চশিক্ষার সুযোগ। কিন্তু দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে বিদেশি শিক্ষার্থীরা। ফলে প্রতি বছরই বিদেশ থেকে বাংলাদেশে পড়তে আসা শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমছে। মানসম্পন্ন শিক্ষার ঘাটতি, ভালো শিক্ষকের অভাব, গবেষণা ও আধুনিক গবেষণাগারের সুবিধা না থাকা, আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকা, চাকরির অনিশ্চয়তা, রাজনৈতিক অস্থিরতাসহ বহুবিধ কারণেই বিদেশি শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে বলে শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা মনে করেন। ৭০ ও ৮০’র দশকে মালয়েশিয়া, ইরাক, ইরান, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কাসহ মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপণ্ডআফ্রিকার অনেক দেশ থেকেই বাংলাদেশে শিক্ষার্থীরা পড়তে আসতো। কিন্তু ক্রমান্বয়ে বাংলাদেশের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে বিদেশি শিক্ষার্থীরা। বরং উচ্চশিক্ষার জন্য বাংলাদেশেরই বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী প্রতি বছর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে পাড়ি দিচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং শিক্ষাবিদদের সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ইউজিসির তথ্যানুযায়ী বর্তমানে দেশের ৫৩টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষাকার্যক্রমে থাকা ১০০ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ১ হাজার ৯৫৭ জন বিদেশি শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে। এর মধ্যে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬৭০ জন এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১ হাজার ২৮৭ জন। অথচ গত এক যুগের মধ্যে ২০১০ সালে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৫৯ জন, ২০১১ সালে ২১০ জন, ২০১২ সালে ৫২৫ জন, ২০১৩ সালে ৩২৬ জন, ২০১৪ সালে ৪৩২ জন, ২০১৫ সালে ৫৯৩ জন, ২০১৬ সালে ৩৫৫ জন, ২০১৭ সালে ৪৬২, ২০১৮ সালে বেড়ে তা ৮০৪ জন ভর্তি হয়েছে। তবে এর পরের বছর ২০১৯ সালে বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তি প্রায় অর্ধেকে নেমে ৪৮২ জনে দাঁড়িয়েছিল। ২০২০ সালে ছিল ৭৬৭, ২০২১ সালে ৬৭৭ এবং ২০২২ সালে কমে হয়েছে ৬৭০ জন। আর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ১০ বছরের মধ্যে এখন সর্বনিম্ন সংখ্যক বিদেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। ২০১৩ সালে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অধ্যয়নরত ছিল ১ হাজার ৬১২ জন শিক্ষার্থী, ২০১৪ সালে ১ হাজার ৬৪৩ জন, ২০১৫ সালে ১ হাজার ৫৪৮ জন, ২০১৬ সালে ১ হাজার ৯২৭ জন, ২০১৭ সালে ১ হাজার ৯৭৭ জন, ২০১৮ সালে ১ হাজার ৩৮৬ জন, ২০১৯ সালে ১ হাজার ৪৬৭ জন, ২০২০ সালে ১ হাজার ৫৫০ জন, ২০২১ সালে ১ হাজার ৬০৪ জন ছিল। কিন্তু ২০২২ সালে সেটি বিগত ১০ বছরের মধ্যে কমে সর্বনিম্ন ১ হাজার ২৮৭ জনে দাঁড়িয়েছে। ২০২২ সালে বাংলাদেশের ১০০টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে কেবল ৩২টিতে ৩৭ দেশের শিক্ষার্থীরা স্নাতক-স্নাতকোত্তর ডিগ্রিতে পড়াশোনা করতে আসে। এর মধ্যে রয়েছে- ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, নেপাল, ভুটান, দক্ষিণ সুদান, চীন, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, মিসর, ফিলিস্তিন, গাম্বিয়া, মরক্কো, কোরিয়া, নাইজেরিয়া, ইরান, তানজানিয়া, মিয়ানমার, রোয়ান্ডা, ইন্দোনেশিয়া, সোমালিয়া, ইথিওপিয়া, সিয়েরা লিয়েন, আফগানিস্তান, ফিলিপাইন, তাইওয়ান, পাপুয়া ইউগিনি, দক্ষিণ আফ্রিকা, সংযুক্ত আরব আমিরাত, জার্মানি, ক্যামেরুন, তুরস্ক, কেনিয়া, ঘানা, উগান্ডা, লাইবেরিয়া ও জিবুতি। সূত্র জানায়, গত ১৫ বছরে বিদেশে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ গুণ বেড়েছে। ১৫ বছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা দ্বিগুণ হওয়া সত্ত্বেও মানসম্মত উচ্চশিক্ষার অভাব, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং দেশে কর্মসংস্থানের সীমিত সুযোগসহ বেশ কয়েকটি কারণে শিক্ষার্থীদের দেশ ছাড়ার প্রবণতা বাড়ছে। ইউনেস্কোর সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী, ২০২২ সালে অন্তত ৪৯ হাজার ১৫১ জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ৫৮টি দেশে পড়াশোনার জন্য গেছে। ২০১৩ সালে এই সংখ্যা ছিল ২৪ হাজার ১১২ এবং ২০০৮ সালে ছিল ১৬ হাজার ৬০৯। ২০০৮ সাল থেকে উচ্চশিক্ষার ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে সরকার ২৫টি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে এবং ৫৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন দিয়েছে। বর্তমানে দেশের ৫৩টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও তাদের অধিভুক্ত কলেজ এবং ও ১১১টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪৪ লাখ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। সূত্র আরো জানায়, বিদেশি শিক্ষার্থী কম থাকায় বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে পড়ছে। তারা দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলছে। এদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চরম ক্লাসরুম সঙ্কট রয়েছে। একটি ক্লাসে ১৬০ জন পড়ানো হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের চাপে ক্লাসের পরিবেশ বজায় থাকে না। চরমভাবে আবাসন ও খাবার সঙ্কট রয়েছে। বিদেশিরা এসব মেনে নিতে পারে না। ঢাকা মহানগরে এমন পরিস্থিতি, ঢাকার বাইরে এ সমস্যা আরও বেশি। কিন্তু আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিংয়ে যেতে হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশি শিক্ষার্থী ও বিদেশি ফ্যাকাল্টি মেম্বার থাকাটা অধিক গুরত্বপূর্ণ। নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতার কারণে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে বিদেশি শিক্ষার্থীরা আগ্রহ হারাচ্ছে। বিদেশি শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করতে হলে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আন্তর্জাতিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। ২০২৩ সালের টাইমস হায়ার এডুকেশন ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি ৬০১ থেকে ৮০০তম স্থানের মধ্যে রয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এবং খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) রয়েছে ১ হাজার ২০২ থেকে ১ হাজার ৫০০ এর মধ্যে। ১৩টি সূচকের ওপর ভিত্তি করে ১০৪টি দেশের ১ হাজার ৭৯৯টি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে এই র‌্যাঙ্কিং করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক টাইমস এশিয়া ইউনিভার্সিটি র‌্যাঙ্কিং ২০২৩-এ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি যথাক্রমে ১৮৬তম ও ১৯২তম স্থানে রয়েছে। ৩১টি অঞ্চলের ৬৬৯টি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে এই র‌্যাঙ্কিং করা হয়েছে। এদিকে শিক্ষাবিদদের মতে, ৮০’র দশকে যে পরিমাণ বিদেশি শিক্ষার্থী বাংলাদেশে আসতো, পরবর্তীতে আস্তে আস্তে তা কমেছে। একসময় দক্ষিণ এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্যের প্রচুর সংখ্যক শিক্ষার্থী আসতো। মূলত পাঠদান পদ্ধতি, ক্রেডিট ট্রান্সফার, স্কলারশিপের সুযোগ, পিএইচডি, এমফিল, র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকা, ভাষাগত সমস্যা, চাকরির সুযোগ না থাকাসহ বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতার কারণে বিদেশি শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী কম। এ ছাড়া রাজনৈতিক অস্থিরতা, অরাজকতাও অনেকাংশে দায়ী। বিরীতে দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীরা বাইরে চলে যাচ্ছে এবং তারা ফিরছেন না। শিক্ষার্থীদের পেছনে রাষ্ট্র অর্থ ও শ্রম বিনিয়োগ করছে কিন্তু তাদের সেবা পাঁচ্ছে অন্য দেশ। কারণ তাদের ধরে রাখার জন্য যেমন পরিবেশ ও সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা প্রয়োজন, সেটি দেয়া যাচ্ছে না। অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য প্রফেসর ড. বিশ্বজিৎ চন্দ জানান, বিদেশি শিক্ষক-শিক্ষার্থী না থাকায় এদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকছে। তাদের আকৃষ্ট করতে হলে সেশনজট রাখা যাবে না, আলাদা আবাসিক সুযোগ-সুবিধা রাখতে হবে, তাদের সংস্কৃতিকে মর্যাদা দিতে হবে, শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ আশপাশের মানুষের সঙ্গে মিশতে যাতে ভাষার কোনো প্রতিবন্ধকতা না থাকে এবং খ-কালীন চাকরির সুযোগ তৈরি করতে। তারা যদি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে তাহলেই কেবল আগ্রহী হবে। এখান থেকে যারা বিদেশে পড়তে যাচ্ছে তাদের মূল উদ্দেশ্য থাকে অভিবাসন। রাষ্ট্রের অনেক বিষয় তাদের পছন্দ না, চাকরির নিশ্চয়তা নেই, অন্যদিকে যেসব দেশে তারা যাচ্ছে সেখানে সুযোগ-সুবিধা বেশি, চাকরি ও বসবাসের নিশ্চয়তা পাঁচ্ছে বলেই আর ফিরছে না।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর