চলতি অর্থবছরে প্রথম প্রান্তিকে বাজেট বাস্তবায়ন কমেছে

অর্থ মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত হিসেবে চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বাজেট বাস্তবায়ন গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে কমেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বাজেট বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে প্রায় ১১ শতাংশ (১০.৯৮%)। গত ২০২২-২৩ অর্থবছরের একই সময়ে বাজেট বাস্তবায়নের হার ছিল ১২ দশমিক ৫ শতাংশ। সেই হিসেবে এবার বাজেট বাস্তবায়ন হার কমেছে দেড় শতাংশ। একই সময়ে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন হারও গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ প্রথম প্রান্তিকের বাজেট বাস্তবায়নের এহার চূড়ান্ত করেছে।

প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, প্রথম প্রান্তিকে আগের অর্থবছরের তুলনায় বাজেট বাস্তবায়নের হার কমলেও টাকার অঙ্কে সার্বিকভাবে সরকারের ব্যয় সামান্য বেড়েছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে মোট সরকারি ব্যয় হয়েছে ৮৩ হাজার ৬৫০ কোটি টাকা। গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের একই সময়ে মোট সরকারি ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ৮২ হাজার ৪৩৪ কোটি টাকা (পূর্ববর্তী ২০২১-২০২২ অর্থবছরের তুলনায় প্রবৃদ্ধির হার ৫.১৩%)। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে সরকারি ব্যয়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

এদিকে, মোট ব্যয়ের মধ্যে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) খাতে মোট ব্যয় হয়েছে ১৫ হাজার ১৬০ কোটি টাকা (বাস্তবায়ন হার ৫.৭৬%)। গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের একই সময়ে এডিপি ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ১২ হাজার ৬২৮ কোটি টাকা (বাস্তবায়ন হার প্রায় ৭ শতাংশ)। অর্থাৎ গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় এডিপি বাস্তবায়ন হারও কমে গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, আশানুরূপ ব্যয় না হওয়ায় প্রথম প্রান্তিকে বাজেট উদ্বৃত্ত দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৮৬৫ কোটি টাকা। গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের একই সময়ে বাজেট ঘাটতির পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে মোট ৬ হাজার ৬১৫ কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হয়েছে এবং একই সময়ে সঞ্চয়পত্রের সুদ বাবদ ১৩ হাজার ৪০ কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। গত অর্থবছরের একই সময়ে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণ গ্রহণের পরিমাণ ছিল ৭ হাজার ২১১ কোটি টাকা এবং সঞ্চয়পত্রের সুদ পরিশোধের পরিমাণ ছিল ৮ হাজার ১৯৯ কোটি টাকা।

অর্থ বিভাগের পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে নিট বৈদেশিক অর্থায়ন আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে এবং বৈদেশিক উৎস থেকে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৮ হাজার ৩৩৯ কোটি টাকা কম ঋণ নেওয়া হয়েছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বৈদেশিক ঋণ গ্রহণের পরিমাণ হচ্ছে ১ হাজার ৮৪৩ কোটি টাকা এবং অনুদানের পরিমাণ হচ্ছে ৫৩৭ কোটি টাকা (গত অর্থবছরের একই সময়ে কোন অনুদান পাওয়া যায়নি)। এর বিপরীতে আলোচ্য সময়ে মোট ৮ হাজার ৯৪ কোটি টাকা বৈদেশিক ঋণ পরিশোধ করা হয়েছে।

গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে বৈদেশিক ঋণ পরিশোধের পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৯৩০ কোটি টাকা। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে আগের অর্থবছরের একই সময়ে তুলনায় আড়াইগুনেরও বেশি বৈদেশিক ঋণ পরিশোধ করা হয়েছে।

অর্থ বিভাগের হিসাব মতে, ৫ লাখ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে সার্বিক রাজস্ব আদায় হয়েছে ৯৫ হাজার ৫০৯ কোটি টাকা। এটি লক্ষ্যমাত্রার ১৯ দশমিক ১ শতাংশ। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)-এর আওতাধীন রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ হচ্ছে ৭৫ হাজার ৮০৯ কোটি টাকা (যা এনবিআর-এর লক্ষ্যমাত্রার ১৭ দশমিক ৬ শতাংশ)। গত ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের একই সময়ে এনবিআর-এর আওতাধীন রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ছিল ৬৭ হাজার ৯০২ কোটি টাকা। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে এনবিআর-এর আওতাধীন রাজস্ব আদায়ের হার ১১ দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর