,



নিজের ছেলের বউকে ভাগিয়ে বিয়ে করলেন শ্বশুর

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ ছেলের বউকে নিয়ে শ্বশুর পালিয়ে যাবার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত নয় মাস পূর্বে বাবা নুর ,,

ইসলাম (৪৫) ছেলের পছন্দের মেয়ের সাথেই বিয়ে দেয় তার ছেলে বেলাল হোসেনের (২২)।
ঘটনাটি গত ২৪ আগস্ট পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার তোড়েয়া ইউনিয়নের ছেপরাঝার গ্রামে বিয়ের পরেই জীবিকা নির্বাহের জন্য স্ত্রীকে রেখে কর্মস্থলে চলে যেতে হয় বেলালকে। ছুটি পেলেই মাঝে মাঝে বাসায় আসতো ছেলে। বেলাল বাসায় আসলে খারাপ তার সাথে আচরণ করতো তার স্ত্রী।

এই বিষয়ে নুর ইসলামের স্ত্রী তসলিমা বলেন, ‘আমার ছেলে বাসায় আসলে আমার বউমা প্রতিদিন বিছানায় শোয়ার সময় আমার ছেলের সাথে খারাপ আচরণ করতো। মাঝে মাঝে দেখা যেত আমার স্বামী আমার বৌমার সাথে আমাদের শোবার ঘরে বসে হাসাহাসি করতো।

সন্দেহ হলে আমার স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি বলতেন বৌমা হলো নিজের মেয়ের মত। এসব নিয়ে আমাকে প্রায় সময়ই মারপিট করতো। সম্মানের ভয়ে আমি বিষয়টি কাউকে জানাতে পারিনি। ১লা ভাদ্র মাসে ভাদর কাটানির উৎসব পালনের জন্য বৌমা তার বাবার বাড়িতে যায়।

মেয়ের পরিবারিক সূত্রে জানা যায়, খালার বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশে মেয়ে তার বাবার বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। আগে থেকে শ্বশুর বৌমা যুক্তি-বুদ্ধি করে রেখেছিল। পরিকল্পনা অনুসারে খালার বাড়িতে না গিয়ে তারা পালিয়ে বিয়ে করে ঢাকার উদ্দেশে চলে যায়। ঘটনার কয়েকদিন পর মেয়ে তার মাকে ফোনে নিশ্চিত করে যে সে তার শ্বশুরকে বিয়ে করে বর্তমানে ঢাকায় সংসার করছে।

এদিকে শ্বশুর বৌমা বিয়ে করায় এলাকার মানুষ ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এলাকাবাসীসহ উভয় পক্ষের পরিবার শ্বশুর- বৌমার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছে। যেন ভবিষ্যতে দ্বিতীয়বার এ ধরনের জঘন্যতম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে===
অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞেরা ৩৫০ জন কনের ওপর গবেষণা করে তথ্য বের করেন, বিয়ের পর কেন কনের স্তন ও কোমর মোটা হয়। দেখা যায়, বিয়ের পর প্রথম ছয় মাসে কনেরা প্রায় পাঁচ পাউন্ডের মতো ওজন (weight)বাড়িয়ে ফেলেন। পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, যারা বিয়ের সময়ে সুন্দর দেখাতে নিজের ওজন (weight)অনেক দ্রুত কমিয়ে ফেলেন, বিয়ের পর তাদের ওজন (weight)দ্রুত বেড়ে যায়।

এটা প্রায়শই দেখা যায় যে, মেয়েরা চায় বিয়ের সময়ে তাদের দেখতে ছিপছিপে এবং কমবয়সী লাগুক। এ কারণে তারা বিয়ের কয়েক মাস আগে থেকেই কঠোর ডায়েটে চলে যান। এমনকি দেখা যায়, পরিবারের মানুষ এমনকি তাদের বাগদত্ত পুরুষেরাই তাদেরকে বলেন ওজন (weight)কমাতে।

তারা বেশিরভাগই মোটামুটি ২০ পাউন্ড (৯ কেজির) মতো ওজন (weight)কমানোর পরিকল্পনা করে ডায়েট শুরু করেন। অনেকের ওজন (weight)এই ডায়েটের ফলে কমে গেলেও বেশিরভাগেরই ওজনে তেমন কোনো হেরফের হয় না। তখন প্রথম ছয় মাসের মাঝেই তাদের ওজন বেড়ে যায় দ্রুত।দেখা যায়, বিয়ের ছয় মাস পর তাদের ওজন বেড়েছে গড়ে ৪.৭ পাউন্ড (২.১ কেজি)।

যারা বিয়ের আগে ওজন (weight)কমিয়েছিলেন, তাদের ওজন বাড়ার পরিমাণ আরও বেশি, প্রায় ৭.১ পাউন্ড (৩.২ কেজি)। তবে তারা বিয়ের আগে ওজন (weight)কমালেও বিয়ের পরে প্রায় ৪.৫ কেজি পর্যন্ত ওজন বেড়ে যায় তাদের। বিয়ের পরে মেয়েরা মনে করে, সামনে তো আর কোনো বড় উপলক্ষ নেই আর তাই ওজন (weight)নিয়ন্ত্রণের দিকে তাদের তেমন লক্ষ্য থাকে না। তারা

খাওয়াদাওয়া এবং ব্যায়ামের ব্যাপারে নিয়মকানুন অনুসরণ বন্ধ করে দেন, যার ফলে ওজন (weight)বেড়ে যেতে থাকে। অনেকে আবার মনে করেন, বিয়ের পরে তাদের আকর্ষণীয় ফিগার বজায় রাখার দরকার নেই, এ কারনেও তাদের ওজন (weight)এভাবে বাড়তে দেখা যায়।

বিয়ের পর মোটা হয়ে যাওয়া রোধে করণীয় :
তবে কেবল মেয়েদের জন্য নয়, নারী-পুরুষ উভয়েই এই টিপস মেনে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ওজন(weight)। হানিমুনে গেলে খুব বেশি জাঙ্ক ফুড না খেয়ে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। যেমন – পোলাও, বিরিয়ানি না খেয়ে গ্রিল করা চিকেন বা মাছ খেতে পারেন। সাথে খাবেন প্রচুর পরিমানে

সালাদ । আর মিষ্টি জাতীয় খাবার যেমন কেক, পেস্ট্রি খাওয়ার বদলে ফ্রুট সালাদ আর ফলের রস খেতে পারেন। ভ্রমনে গেলে রিচ ফুড এমনিতেও এড়িয়ে চলা উচিত।

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ভিটামিন বি জাতীয় ওষুধ খেতে পারেন। নতুন পরিবেশে নতুন দায়িত্ব নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি জোগাবে ভিটামিন বি, বাড়ি খাবারের প্রয়োজন পড়বে না।

বিয়ের পর প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন আত্মীয়ের বাসায়
নতুন জুটির দাওয়াত থাকাটাই স্বাভাবিক। আর এতেই ওজন (weight)অনেকটা বেড়ে যায়। তাই বলে কোথাও দাওয়াতে গেলে একদমই যে খাবেন না তা কিন্তু নয়, ঘি ও তেল মশলা দেয়া খাবার কম নিয়ে সালাদের পরিমান বাড়িয়ে দিন। কোমল পানীয়ের বদলে পানি পান করুন।===
ছেলের বউকে নিয়ে শ্বশুর পালিয়ে যাবার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত নয় মাস পূর্বে বাবা নুর ইসলাম (৪৫) ছেলের পছন্দের মেয়ের সাথেই বিয়ে দেয় তার ছেলে বেলাল হোসেনের (২২)।

ঘটনাটি গত ২৪ আগস্ট পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার তোড়েয়া ইউনিয়নের ছেপরাঝার গ্রামে বিয়ের পরেই জীবিকা নির্বাহের জন্য স্ত্রীকে রেখে কর্মস্থলে চলে যেতে হয় বেলালকে। ছুটি পেলেই মাঝে মাঝে বাসায় আসতো ছেলে। বেলাল বাসায় আসলে খারাপ তার সাথে আচরণ করতো তার স্ত্রী।

এই বিষয়ে নুর ইসলামের স্ত্রী তসলিমা বলেন, ‘আমার ছেলে বাসায় আসলে আমার বউমা প্রতিদিন বিছানায় শোয়ার সময় আমার ছেলের সাথে খারাপ আচরণ করতো। মাঝে মাঝে দেখা যেত আমার স্বামী আমার বৌমার সাথে আমাদের শোবার ঘরে বসে হাসাহাসি করতো।

সন্দেহ হলে আমার স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি বলতেন বৌমা হলো নিজের মেয়ের মত। এসব নিয়ে আমাকে প্রায় সময়ই মারপিট করতো। সম্মানের ভয়ে আমি বিষয়টি কাউকে জানাতে পারিনি। ১লা ভাদ্র মাসে ভাদর কাটানির উৎসব পালনের জন্য বৌমা তার বাবার বাড়িতে যায়।’

মেয়ের পরিবারিক সূত্রে জানা যায়, খালার বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশে মেয়ে তার বাবার বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। আগে থেকে শ্বশুর বৌমা যুক্তি-বুদ্ধি করে রেখেছিল। পরিকল্পনা অনুসারে খালার বাড়িতে না গিয়ে তারা পালিয়ে বিয়ে করে ঢাকার উদ্দেশে চলে যায়। ঘটনার কয়েকদিন পর মেয়ে তার মাকে ফোনে নিশ্চিত করে যে সে তার শ্বশুরকে বিয়ে করে বর্তমানে ঢাকায় সংসার করছে।

এদিকে শ্বশুর বৌমা বিয়ে করায় এলাকার মানুষ ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে। এলাকাবাসীসহ উভয় পক্ষের পরিবার শ্বশুর- বৌমার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছে। যেন ভবিষ্যতে দ্বিতীয়বার এ ধরনের জঘন্যতম ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে===
অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞেরা ৩৫০ জন কনের ওপর গবেষণা করে তথ্য বের করেন, বিয়ের পর কেন কনের স্তন ও কোমর মোটা হয়। দেখা যায়, বিয়ের পর প্রথম ছয় মাসে কনেরা প্রায় পাঁচ পাউন্ডের মতো ওজন (weight)বাড়িয়ে ফেলেন। পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, যারা বিয়ের সময়ে সুন্দর দেখাতে নিজের ওজন (weight)অনেক দ্রুত কমিয়ে ফেলেন, বিয়ের পর তাদের ওজন (weight)দ্রুত বেড়ে যায়।

এটা প্রায়শই দেখা যায় যে, মেয়েরা চায় বিয়ের সময়ে তাদের দেখতে ছিপছিপে এবং কমবয়সী লাগুক। এ কারণে তারা বিয়ের কয়েক মাস আগে থেকেই কঠোর ডায়েটে চলে যান। এমনকি দেখা যায়, পরিবারের মানুষ এমনকি তাদের বাগদত্ত পুরুষেরাই তাদেরকে বলেন ওজন (weight)কমাতে।

তারা বেশিরভাগই মোটামুটি ২০ পাউন্ড (৯ কেজির) মতো ওজন (weight)কমানোর পরিকল্পনা করে ডায়েট শুরু করেন। অনেকের ওজন (weight)এই ডায়েটের ফলে কমে গেলেও বেশিরভাগেরই ওজনে তেমন কোনো হেরফের হয় না। তখন প্রথম ছয় মাসের মাঝেই তাদের ওজন বেড়ে যায় দ্রুত।দেখা যায়, বিয়ের ছয় মাস পর তাদের ওজন বেড়েছে গড়ে ৪.৭ পাউন্ড (২.১ কেজি)।

যারা বিয়ের আগে ওজন (weight)কমিয়েছিলেন, তাদের ওজন বাড়ার পরিমাণ আরও বেশি, প্রায় ৭.১ পাউন্ড (৩.২ কেজি)। তবে তারা বিয়ের আগে ওজন (weight)কমালেও বিয়ের পরে প্রায় ৪.৫ কেজি পর্যন্ত ওজন বেড়ে যায় তাদের। বিয়ের পরে মেয়েরা মনে করে, সামনে তো আর কোনো বড় উপলক্ষ নেই আর তাই ওজন (weight)নিয়ন্ত্রণের দিকে তাদের তেমন লক্ষ্য থাকে না। তারা

খাওয়াদাওয়া এবং ব্যায়ামের ব্যাপারে নিয়মকানুন অনুসরণ বন্ধ করে দেন, যার ফলে ওজন (weight)বেড়ে যেতে থাকে। অনেকে আবার মনে করেন, বিয়ের পরে তাদের আকর্ষণীয় ফিগার বজায় রাখার দরকার নেই, এ কারনেও তাদের ওজন (weight)এভাবে বাড়তে দেখা যায়।

বিয়ের পর মোটা হয়ে যাওয়া রোধে করণীয় :
তবে কেবল মেয়েদের জন্য নয়, নারী-পুরুষ উভয়েই এই টিপস মেনে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ওজন(weight)। হানিমুনে গেলে খুব বেশি জাঙ্ক ফুড না খেয়ে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। যেমন – পোলাও, বিরিয়ানি না খেয়ে গ্রিল করা চিকেন বা মাছ খেতে পারেন। সাথে খাবেন প্রচুর পরিমানে

সালাদ । আর মিষ্টি জাতীয় খাবার যেমন কেক, পেস্ট্রি খাওয়ার বদলে ফ্রুট সালাদ আর ফলের রস খেতে পারেন। ভ্রমনে গেলে রিচ ফুড এমনিতেও এড়িয়ে চলা উচিত।

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ভিটামিন বি জাতীয় ওষুধ খেতে পারেন। নতুন পরিবেশে নতুন দায়িত্ব নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি জোগাবে ভিটামিন বি, বাড়ি খাবারের প্রয়োজন পড়বে না।

বিয়ের পর প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন আত্মীয়ের বাসায়
নতুন জুটির দাওয়াত থাকাটাই স্বাভাবিক। আর এতেই ওজন (weight)অনেকটা বেড়ে যায়। তাই বলে কোথাও দাওয়াতে গেলে একদমই যে খাবেন না তা কিন্তু নয়, ঘি ও তেল মশলা দেয়া খাবার কম নিয়ে সালাদের পরিমান বাড়িয়ে দিন। কোমল পানীয়ের বদলে পানি পান করুন।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর