,



দূরত্ব যতই হোক শিক্ষার্থীর ভাড়া ৫ টাকা

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ চট্টগ্রামের স্কুলশিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ‘উপহার’ ১০টি দ্বিতল উদ্বোধন করা হয়েছে।

শনিবার বেলা ১২টার দিকে নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামসংলগ্ন জিমনেশিয়াম মাঠে বহু প্রতীক্ষিত এ বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

আগামীকাল রোববার থেকে বাসগুলো শিক্ষার্থীদের পরিবহন শুরু করবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) আবু হাসান সিদ্দিক।

মাত্র ৫ টাকা ভাড়ায় স্কুল ও মাদ্রাসার দশম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা এসব বাসে যাতায়াত করতে পারবে। টাকা নেয়ার জন্য বাসের সামনে ও পেছনে লাগানো থাকবে ‘সততা’ বাক্স। সেখানেই ভাড়ার টাকা জমা রাখবে শিক্ষার্থীরা।

২০১৮ সালে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীরা স্কুলবাস চালুসহ ৯ দফা দাবি তুলে ধরে। ওই সময় জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নেয়ার আশ্বাস দেন। পরে শিক্ষার্থীদের জন্য বিআরটিসি বাস বরাদ্দের অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চিঠি দেন জেলা প্রশাসক।

গত বছরের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে ১০টি দোতলা বাস বরাদ্দ দেয় বিআরটিসি। তবে পরিচালন ব্যয়সহ নানা জটিলতার কারণে এগুলো রাস্তায় নামানো যায়নি। স্কুলবাস পরিচালনায় শেষ পর্যন্ত সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় জিপিএইচ ইস্পাত। তারা বাস সার্ভিসটির পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, বাসগুলোর সময় নির্ধারণ করা হয়েছে স্কুলের সময়সূচির সঙ্গে মিল রেখে।

মর্নিং শিফট ও ডে শিফটের জন্য থাকছে আলাদা বাস। নগরীর প্রধান দুটি রুটে বাসগুলো চলাচল করবে। এক নম্বর রুট হচ্ছে- বহদ্দারহাট থেকে শুরু হয়ে নিউমার্কেট ভায়া বাদুরতলা, মুরাদপুর, চকবাজার, গণি বেকারি, জামালখান, চেরাগি পাহাড়, আন্দরকিল্লা এবং কোতোয়ালি এলাকা। দুই নম্বর রুটটি হচ্ছে– অক্সিজেন মোড় থেকে মুরাদপুর, জিইসি মোড়, ওয়াসা মোড় এবং টাইগারপাস ও আগ্রাবাদ এলাকা।

প্রতি মাসে এসব বাস থেকে ৪ লাখ টাকা আয় হতে পারে। ব্যয় হবে প্রায় ৯ লাখ টাকা। ব্যয়ের ঘাটতি পূরণ করতে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। প্রতি বছর ১ কোটি ২০ লাখ টাকা দেবে প্রতিষ্ঠানটি।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর