,



ভোলার ঘটনা নিয়ে যা বললেন জুনায়েদ বাবুনগরী

বাঙ্গালী কণ্ঠ ডেস্কঃ ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে জনতার সংঘর্ষে চারজন নিহত হওয়ার ঘটনার বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম সংগঠনের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী।

ফেসবুকে ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর স্ট্যাটা স ও মেসেজ ছড়ানোর জেরে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদরে রণক্ষেত্র তৈরির ঘটনাটি পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যমূলক বলে মনে করেন জুনায়েদ বাবুনগরী।

আজ সোমবার দুপুরে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে সংগঠনটির কার্যালয়ে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘আমরা মনে করি বিষয়টি পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে। আমরা সেই আপত্তিকর স্ট্যাটাসদাতার শাস্তি দাবি করছি।

এর পর তিনি এ ঘটনার প্রতিবাদে ও সেই আপত্তিকর স্ট্যাটাসদাতার শাস্তির দাবিতে আগামীকাল মঙ্গলবার দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেন।

জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, দেশের প্রতিটি জেলা শহরে আগামীকাল জোহরের নামাজের পর শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

এ ঘোষণার পর অধিকতর ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করেন হেফাজত মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি বিষয়টি পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে। দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের উদ্দেশ্যে এটি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- ওই ছেলের আইডি হ্যাকড হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কথা আমাদের মাথার ওপরে। এর পরও প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাচ্ছি, বিষয়টি যেন অধিকতর তদন্ত করা হয়।’

এদিকে জানা গেছে, এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে করা স্থানীয় মুসল্লিদের ‘যৌক্তিক’ দাবি মেনে নিয়েছে প্রশাসন।

সোমবার বেলা ১১টায় দাবি মেনে নেয়ায় ‘সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের’ ব্যানারে ভোলা সরকারি স্কুল মাঠে প্রতিবাদ সমাবেশ বাতিল করা হয়।

ছয় দফা দাবি হলো-

১. জেলা ও থানা থেকে এসপি এবং ওসিদের প্রত্যাহার করতে হবে

২. ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করার অনুমতি দিতে হবে

৩. আহত লোকজনের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে

৪. নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দিতে হবে

৫. অভিযুক্ত বিপ্লব চন্দ্র শুভর সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের ফাঁসি দিতে হবে এবং

৬. গ্রেফতার করা ব্যক্তিদের মুক্তি দিতে হবে।

গতকাল (রোববার) দিবাগত রাতে বোরহানউদ্দিন উপজেলা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক যুবকের হ্যাক করা ফেসবুক আইডি থেকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ‘ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট’ দেয়া কেন্দ্র করে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা হয়েছে।

পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় বোরহানউদ্দিন থানার এসআই আজিজুল হক বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা পাঁচ হাজার জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন, যার মামলা নং-১৮, তারিখ: ২০-১০-২০১৯।

এদিকে ভোলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কাউসার জানান, ফেসবুকে এ কটূক্তির ঘটনায় হিন্দু বিপ্লব চন্দ্র শুভ, মো. শাকিব ও লিমনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা (নং ১৭) দেয়া হয়। এ মামলায় তাদের ভোলা কোর্টে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, রোববার সকাল ১০টায় বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে সমাবেশ শেষে শুরু হওয়া এ সংঘর্ষে গুলি, টিয়ারশেল ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়।

সংঘর্ষে আহত ৪৫ জনকে ভোলা সদর ও ৩০ জনকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং বাকিদের বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আহতদের বেশিরভাগই গুলিবিদ্ধ।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চার প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। বিজিবি, পুলিশ ও র্যা বের টহল জোরদার করার পর বিকালেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- বোরহানউদ্দিন উপজেলার মহিউদ্দিন পাটওয়ারীর মাদ্রাসাছাত্র মাহবুব (১৪), উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের কলেজপড়ুয়া ছেলে শাহিন (২৩), বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪৫) এবং মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজান (৪০)।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর