ব্রাজিলকে বিদায় করে অলিম্পিকে আর্জেন্টিনা

প্যারিস অলিম্পিকে খেলতে হলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে জিততেই হবে আর্জেন্টিনাকে। আর ড্র হলেই চলবে ব্রাজিলের। যে দল হারবে তাদেরকে বিদায় নিতে হবে বাছাইপর্ব খেলেই। এমন সমীকরণের ম্যাচে শেষ হাসি হেসেছেন মাচেরানোর আর্জেন্টিনা। প্যারিস অলিম্পিকের আঞ্চলিক বাছাইয়ের ম্যাচে ব্রাজিলের বিপক্ষে জয় নিয়েই ফিরেছে আর্জেন্টিনার।

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাতে মুখোমুখি হয় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল। দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া আর্জেন্টিনা ১-০ ব্যবধানে জিতে প্যারিসে যাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করে। ম্যাচের ৭৮ মিনিটে মহামূল্যবান গোলটি করেন লুসিয়ানো গুন্দো। আর অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক অবস্থানে থেকেও শেষ পর্যন্ত অলিম্পিকে যাওয়ার টিকিট কাটতে পারলো না ২০১৬ ও ২০২০ অলিম্পিকে স্বর্ণজয়ী ব্রাজিল।

এদিন ম্যাচে অবশ্য আর্জেন্টিনার দাপটই ছিল বেশি। গোল ছাড়াও মাঠের দ্বৈরথে আধিপত্য ছিল তাদেরই। হাভিয়ের মাচেরানোর আর্জেন্টিনা বল দখলে রাখে ৬১ শতাংশ। গোলমুখে শট নেয় ১৪টি; যার মধ্যে ৩টি লক্ষ্যে ছিল। অন্যদিকে ব্রাজিল শট নেয় ৯টি এবং তারাও আর্জেন্টিনার মতো ৩টি শট লক্ষ্যে রাখে। তবে কাঙ্ক্ষিত গোল পাওয়া হয়নি ব্রাজিলের।

ম্যাচ শেষে আর্জেন্টিনার একমাত্র গোলদাতা গুন্দো বলেছেন, সত্যি কথা বলতে, এ জয় আমাদের প্রাপ্য। আমরা কোনো ম্যাচ হারিনি। কোয়ালিফাই করতে পারাটা দারুণ ব্যাপার। সবাই খুবই উচ্ছ্বসিত।

এর আগে, চূড়ান্ত পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে ভেনেজুয়েলা ও প্যারাগুয়ের সঙ্গে ড্র করে আর্জেন্টিনা। অন্যদিকে, প্রথম ম্যাচে প্যারাগুয়ের কাছে ১-০ গোলে হারার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ভেনেজুয়েলাকে ২-১ গোলে হারিয়ে ছিল ব্রাজিল।

ফলে ব্রাজিলের পয়েন্ট হয় ২ ম্যাচে ৩ এবং আর্জেন্টিনার পয়েন্ট ছিল ২ ম্যাচে ২। এ ছাড়া শীর্ষে থাকা প্যারাগুয়ের পয়েন্ট ছিল ২ ম্যাচে ৪। শেষ ম্যাচে তাই আর্জেন্টিনার জন্য জয়ের কোনো বিকল্প ছিল না। লাতিন আমেরিকা অঞ্চল থেকে আর্জেন্টিনা ছাড়াও প্যারিস অলিম্পিকের টিকিট কেটেছে প্যারাগুয়ে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর