,



হোঁচট খেয়েও শীর্ষে বার্সেলোনা

বাঙালী কণ্ঠ ডেস্কঃ স্প্যানিশ লা-লিগায় এস্পানিওলের বিপক্ষে পরশু ২-২ গোলে ড্র করেছে বার্সেলোনা। বার্সেলোনার হয়ে দুটি গোলের একটি করেন সুয়ারেজ। অন্যটি আসে ভিদালের কাছ থেকে। এস্পানিওলের হয়ে প্রথম গোলটি করেন লোপেজ। ৮৮ মিনিটে দ্বিতীয় গোলটি করেন বদলি খেলোয়াড় উ লেই। পয়েন্ট হারালেও রিয়ালের কাছ থেকে টেবিলের শীর্ষস্থান পুনরুদ্ধার করেছে কাতালানরা। ১৯ ম্যাচে সমান ৪০ পয়েন্ট নিয়েও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় লিগে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ফের বার্সেলোনা।

১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে বার্সেলোনা। দ্বিতীয়ার্ধে ৯ মিনিটের ব্যবধানে ২ গোল। এরপর ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং দুবার হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন। দশজনের বার্সাকে পেয়ে বসে এস্পানিওল। ম্যাচের একপর্যায়ে ২-১ গোলে এগিয়ে থেকেও ম্যাচটি জিততে পারেনি বার্সেলোনা। শেষ মুহূর্তে বার্সেলোনার জালে আরও একবার বল জড়ায় এস্পানিওল।

প্রথমার্ধে বলের দখলে বার্সেলোনা ৭৫ শতাংশ এগিয়ে। গোলমুখে তাদের শট ৮টি, লক্ষ্যে রাখতে পেরেছে এর ৩টি শট। ১টিও গোলের মুখ দেখেনি। আর এস্পানিওল ২৫ শতাংশ বলের দখল নিয়ে বাজিমাত করে ফেলল! প্রথমার্ধে গোলমুখে তারা শটই নিয়েছে মাত্র ২টি, লক্ষ্য ঠিক রেখেছে ১টি শটের। ওই ১টিই কিনা গোলের মুখ দেখে ফেলেছে। গোল হজমের পর প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে ফ্রি কিক কাজে লাগাতে পারেননি মেসি। তার একটি হেডও রুখে দেন এস্পানিওনল গোলরক্ষক ডিয়াগো লোপেজ। এরপর সুয়ারেজের একটি শটও গোলপোস্টে না লাগলে সমতায় ফিরতে পারত অতিথিরা।

দ্বিতীয়ার্ধে একইভাবে চাপ প্রয়োগ করে খেলে বার্সেলোনা। ভালভার্দের শিষ্যরা গোলের দেখা পায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই। ম্যাচের ৫০তম মিনিটে জর্ডি আলবার বাড়ানো বল জালে জড়িয়ে দলকে সমতায় ফেরান সুয়ারেজ। ৫৯ মিনিটে সুয়ারেজের বাড়ানো বলে গোল করেন বদলি খেলোয়াড় ভিদাল (২-১)। এরপর ৬৬ মিনিট আর ৭৫ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় ডি ইয়ংকে। দশজনের বার্সাকে পেয়ে বলের দখল বাড়িয়ে খেলার চেষ্টা করে এস্পানিওল। সমতায় ফিরতে মরিয়া স্বাগতিকেরা ৮৮ মিনিটে এসে দেখা পায় গোলের। ভারগাসের বাড়ানো বল জালে জড়িয়ে নিজেদের সমতায় ফেরান এস্পানিওলন খেলোয়াড় উ লেই।

লিগের আরেক ম্যাচে টানা তিন ম্যাচে পয়েন্ট হারিয়ে বড় দিনের ছুটিতে যাওয়া রিয়াল মাদ্রিদ নতুন বছরের শুরুতে কাক্সিক্ষত জয় পেয়েছে। রাফায়েল ভারানের জোড়া গোলে গেতাফেকে হারিয়েছে জিনেদিন জিদানের দল। প্রতিপক্ষের মাঠে পরশু ৩-০ গোলে জিতেছে প্রতিযোগিতাটির সফলতম দল। আগের তিন রাউন্ডে ভালেন্সিয়া, বার্সেলোনা ও আথলেতিক বিলবাওয়ের সঙ্গে ড্র করেছিল মাদ্রিদের ক্লাবটি।

ম্যাচের শুরু থেকে বল দখলে রিয়াল এগিয়ে থাকলেও আক্রমণে আধিপত্য ছিল গেতাফের। ২৪তম মিনিটে ম্যাচের প্রথম সুযোগে এগিয়েও যেতে পারতো স্বাগতিকরা। তবে লেয়ান্দ্রো কাবরেরার জোরালো ভলি ঝাঁপিয়ে রুখে দেন কোর্তোয়া। খেলার ধারার বিপরীতে ৩৪তম মিনিটে গোল পেয়ে যায় রিয়াল। দ্বিতীয়ার্ধের অষ্টম মিনিটে আরেকটি সেটপিসে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ভারানে। চার মিনিট পর ম্যাচ শেষের আগমুহূর্তে স্কোরলাইন ৩-০ করেন মদ্রিচ। পাল্টা আক্রমণে মিডফিল্ডার ভালভেরদের নিঃস্বার্থ পাস ডি-বক্সে পেয়ে ঠিকমতো শট নিতে পারেননি ক্রোয়াট মিডফিল্ডার, তবে বল তার পায়ে লেগে ঠিকানা খুঁজে নেয়।

এফ এ কাপে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড গোলশূন্য ড্র করেছে উলভারহ্যাম্পটনের সঙ্গে। অপর দিকে তৃতীয় রাউন্ডে পোর্ট ভ্যালেকে ৪-১ গোলে হারিয়ে চতুর্থ রাউন্ডে পৌঁছে গেছে ম্যানচেস্টার সিটি। হতাশার ড্রয়ে ম্যাচটি শেষ করতে হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে। গত মৌসুমে এই এফএ কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উলভসের কাছে হেরে গিয়েছিল ম্যানইউ। পরশু ম্যাচ খেলতে ম্যানইউ পরিবর্তন এনেছিল ৭টি। তাতেও ভাগ্য বদলনায়নি ওলে গানার সুলশারের শিষ্যদের।

গত মৌসুমে চারটি ট্রফি জিতলেও এবার পরিস্থিতি তেমন সম্ভাবনাময় নয় সিটির। প্রিমিয়ার লিগে অদম্য গতিতে ছুটে চলছে লিভারপুল। তাদের চেয়ে ঢের পিছিয়ে আছে ম্যানসিটি। এফএ কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হলেও এই ম্যাচ জিততে কম কষ্ট করতে হয়নি সিটিকে। ২০ মিনিটে জিনচেঙ্কোর গোলে এগিয়ে শুরু সিটির। শুরুর এই অগ্রগামিতা ভেস্তে যায় ৩৫ মিনিটে পোপের গোলে পোর্ট ভ্যালে সমতা ফেরালে। তবে ৪২ মিনিটে আবার এগিয়ে যায় সিটি। দ্বিতীয় গোলটি করেন সার্জিও আগুয়েরো।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর