রঙিন ফুলকপি চাষ করে আনন্দে ভাসছেন কৃষক আলী হোসেন

পরীক্ষামূলকভাবে রঙিন ফুলকপি চাষ করে সফল হয়েছেন গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলা নাগরী ইউনিয়নের বির্তুল গ্রামের কৃষক অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মো. আলী হোসেন

প্রতি বছর সাদা ফুলকপি, বাঁধাকপি ও ব্রোকলি চাষ করলেও এবার তার ক্ষেতে শোভা পাচ্ছে হলুদ ও বেগুনি রঙের ফুলকপি। এই প্রথমবার তিনি রঙিন ফুলকপির চাষ করেছেন।

স্থানীয় বাজারেও বেশ সাড়া ফেলেছে আলী হোসেনের রঙ্গীন এই ফুলকপি। কৌতুহলবশত কিনছেন অনেকে, বিক্রিও হচ্ছে বেশি দামে। আশানুরূপ দাম পাওয়ায় কৃষক নিজেও খুশি। তবে তাকে দেখে আশপাশের কৃষকরাও এই রঙিন ফুলকপি চাষে উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন।

আলী হোসেন জানান, রঙিন ফুলকপি চাষে প্রথমে সাহস পাচ্ছিলেন না। ভয় ছিলো লোকসানের। পরে স্থানীয় কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের সার্বিক সহযোগীতা ও পরামর্শে উদ্যোগী হন। আর প্রথমবারেই তার সফলতা দেখে এখন উৎসাহ পাচ্ছেন অন্য কৃষকরাও। তবে আগামীতে কৃষি অফিসের সহযোগীতা অব্যাহত থাকলে ২০ শতক জমিতে শুধু রঙীন ফুলকপির চাষ করবেন বলেও জানান তিনি।

আলী হোসেন বলেন, মাঠে আমার অনেক কৃষি জমি থাকলেও আমি মাত্র ২ শতক জমিতে শুরু করি। কৃষি অফিস থেকে পাওয়া বীজ দিয়ে প্রায় দুইশ রঙীন ফুলকপির চারা লাগিয়েছিলাম। সবগুলোই ভালোভাবে বড় হয়েছে। এখন বাজারে ৬০ টাকা কেজি পাইকারি দরে বিক্রি করি। সেগুলো আবার খুচরায় বিক্রি হচ্ছে ৭০-৯০ টাকা কেজিতে।

রঙিন ফুলকপি চাষে খরচ কেমন জানতে চাইলে আলী হোসেন বলেন, খরচ মোটামুটি একই রকম। তবে জৈব সার দিতে হয় বেশি। সাদা ফুলকপির মত রঙিন ফুলকপিও আকারে বেশ বড় হয়।

বির্তুল গ্রামের কৃষক নজরুল ইসলাম বলেন, সাদা ফুলকপির মতই রঙিন ফুলকপির চাষ হবে কিনা, প্রথমে সেটা নিয়ে সংশয় ছিলো। কিন্তু প্রতিবেশী আলী হোসেন চাচার ২ শতক জমিতে সফলভাবেই চাষ করেছেন। আগামীতে কৃষি অফিসের সহযোগীতা পেলে আমিও এ রঙিন ফুলকপির চাষ করবো ইনশাআল্লাহ।

একই গ্রামের আরেক কৃষক রোপন শেখ বলেন, আলী হোসেন দাদার রঙিন ফুলকপির ক্ষেত দেখতে আসছেন অনেকে। কেউ কেউ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। কেউ আবার ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করছেন। আমাদের কাছে এ ধরনের সবজি চাষ এবারই প্রথম।

নাগরী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মনির উদ্দিন মোল্লা বলেন, আমাদের কৃষি অফিসারের পরামর্শ অনুযায়ী এবারই প্রথম রঙীন ফুলকপির বীজ সংগ্রহ করে কৃষক আলী হোসেনকে দিয়েছি। তিনি ২শ চারা রোপণ করেছেন। পরীক্ষামূলক এই রঙিন ফুলকপির ফলন দেখে কৃষক খুশি এবং আশপাশের কৃষকরাও এ রঙিন ফুলকপি চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ফারজানা তাসলিম বলেন, ফুলকপি মূলত শীতকালীন সবজি হিসেবে পরিচিত। কালীগঞ্জ উপজেলায় এ বছর ১২৯ হেক্টর জমিতে ফুলকপির চাষ হয়েছে। তবে এরমধ্যে বেশিরভাগই সাদা ফুলকপি। তবে এ উপজেলায় এবারই প্রথম রঙিন ফুলকপি চাষ হচ্ছে। স্থানীয় একজন কৃষক রঙীন ফুলকপি চাষে আগ্রহ প্রকাশ করায় আমরা পরীক্ষামূলকভাবে তাকে এটি করতে সহায়তা করেছি। তবে রঙীন ফুলকপি চাষে বাড়তি কোন খরচ নেই। সাধারণত সাদা ফুলকপি চাষের মতই খরচ

কৃষি কর্মকর্তা আরো বলেন, রঙীন ফুলকপি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। বিশেষ করে পারপেল কালারের যে ফুলকপিটা তা আমাদের শরীরের ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এটি দেখতে খুব সুন্দর, যে কারণে মাঠে দেখার জন্য অনেকেই ভিড় করছেন। আবার অন্যান্য কৃষকরাও এটি চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর