ফেনীতে আরও ৩টি সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করবে ইজিসিবি

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিদ্যুৎ উৎপাদন সংস্থা ‘দ্য ইলেকট্রিসিটি জেনারেশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ (ইজিসিবি)’ লিমিটেড ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলায় ৩০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন আরও তিনটি সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করবে।

ইজিসিবি সম্প্রতি ফেনীর সোনাগাজীতে একটি ১০০ মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের জন্য জাপানি ব্যবসায়িক সংস্থা মারুবেনি কর্পোরেশনের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগ চুক্তি (জেভিএ) স্বাক্ষর করেছে।

ইতোমধ্যেই সরকারী ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি (সিসিজিপি) এই ১০০ মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শুল্ক অনুমোদন করেছে।

সিসিজিপির অনুমোদন অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (বিপিডিবি) ২০ বছরের মেয়াদে এই সৌর বিদ্যূৎ থেকে প্রতি ইউনিট ১০.০৯ মার্কিন ডলারে বিদ্যুৎ কিনবে। শিগগিরই সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

অন্যদিকে, ইসিজিবি একই এলাকায় সিঙ্গাপুর ভিত্তিক কোম্পানি ‘হিরো ফিউচার এনার্জিস এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেড’-এর সাথে আরও একটি ১০০ মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করতে যাচ্ছে।

এই মুহূর্তে এই প্রকল্পের ট্যারিফ এবং যৌথ উদ্যোগ সম্পর্কিত কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
সোনাগাজীতে আরও ১০০ মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য রেয়াতি অর্থের ব্যবস্থা করার জন্য ইজিসিবি এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) সাথেও আলোচনা করেছে।

এ ছাড়া ইজিসিবি বর্তমানে ওই এলাকায় ৭৫ মেগাওয়াট সোলার পিভি পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণ করছে। যা এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। ইজিসিবির ৭৫ মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি খুব শিগগির জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করবে।

ইজিসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিন বলেন, ইজিসিবি তার নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদন ক্ষমতা বাড়াতে এবং সরকারের বিভিন্ন নবায়নযোগ্য জ্বালানি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে অবদান রাখার জন্য তার জেনারেশন পোর্টফোলিওতে বৈচিত্র্য আনার পরিকল্পনা করেছে।

তিনি বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি প্রকল্পগুলো বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে আরও অবদান রাখবে।

মঈন উদ্দিন বলেন, ফেনী নদীর ওপর নবনির্মিত বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বিডব্লিউডিবি) মুছাপুর ক্লোজার (১.০৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য) সংলগ্ন সোনাগাজী উপজেলায় সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্রের উন্নয়নের জন্য ইজিসিবি প্রায় এক হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করেছে।

অধিগ্রহণকৃত জমি ফেনী সদর থেকে ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে, সোনাগাজী সদর থেকে ১০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং মিরসরাইতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগর (বিএসএমএসএন) থেকে ১০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত।

মঈন উদ্দিন আরও জানান, প্রথম পর্যায়ে, কোম্পানিটি মিরসরাইতে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল র্কর্তপক্ষের  (বেজা) দক্ষিণ পাশের এলাকায় (পিজিসিবি) এর ৪০০/২৩০ কেভি গ্রিড সাবস্টেশনে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য প্রায় ২৮৫ একর জমি ব্যবহার করে ৭৫ মেগাওয়াট সোলার পিভি পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণ করছে।

তিনি বলেন, প্রকল্পের আওতায় গ্রিড সাবস্টেশন পর্যন্ত ২৩০ কেভি ১৩ দশমিক ৩ কিলোমিটার ট্রান্সমিশন লাইন এবং প্ল্যান্ট এলাকায় একটি ৩৩/২৩০ কেভি এআইএসএস সাবস্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে।

প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরও জানিয়েছেন, ‘ইজিসিবি অবশিষ্ট জমিতে আরও পিভি প্ল্যান্ট তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে। ইজিসিবি আরও সৌর পিভি প্ল্যান্ট তৈরির জন্য বিদ্যমান জমির সংলগ্ন দক্ষিণে ৩৮৬ একর জমি অধিগ্রহণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ভবিষ্যতে এটি একটি পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি (আরই) পাওয়ার হাব হবে।’

মারুবেনি এশিয়ান পাওয়ার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শিগেরু নাগাশিমা বলেন, তারা বাংলাদেশে উচ্চ মানের পরিবেশবান্ধব এবং টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন।

তিনি জানান, এরই ধারাবাহিকতায় ১০০ মেগাওয়াট সোলার পিভি পাওয়ার প্লান্টের উন্নয়নে তারা ইজিসিবির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর