দেশে ২৩ ভাগ মানুষ নিরক্ষর

সারাদেশে  আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালিত হয়েছে। শুক্রবার দেশের প্রতিটি বিভাগসহ জেলা-উপজেলায় সরকারি আয়োজনে দিবসটি পালন করা হয়।

এ বছর সাক্ষরতা দিবসের প্রতিপাদ্য- ‘পরিবর্তনশীল ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে সাক্ষরতার প্রসার’ যা সময়ের গুরুত্ব বিবেচনায় অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বিবিএসের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশে সাক্ষরতার হার ৭৬.৮ ভাগ। গত বছরে তুলনায় কেবল ১ দশমিক ৪২ শতাংশ বেড়েছে এই সাক্ষরতা।

এখনও দেশে ২৩.২ ভাগ মানুষ নিরক্ষর। তারা পড়তে, লিখতে, বুঝতে ও গণনা করতে পারে না। দেশে মোট জনসংখ্যার চার কোটির বেশি মানুষ নিরক্ষর।

অন্যদিকে গত বছরের ২৭ জুলাই প্রকাশিত বিবিএস জনশুমারি ও গৃহ গণনার তথ্য অনুযায়ী, সাক্ষরতার হার ৭৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। ২০২০ সালে এ হার ছিল ৭৪ দশমিক ৭০ শতাংশ।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, ১৯৭১ সালে দেশে সাক্ষরতার হার ছিল ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ, ১৯৯০ সালে ৩৫ দশমিক তিন শতাংশ, ২০১০ সালে ৫৮ দশমিক ছয় শতাংশ, ২০২০ সালে সাক্ষরতার হার ছিল ৭৫ দশমিক ছয় শতাংশ।

২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি অর্জনের অন্যতম শর্ত দেশকে নিরক্ষরমুক্ত করা। কিন্তু সে লক্ষ্য বাস্তবায়নে সরকারের তেমন কোনো অগ্রগতি নেই।

এছাড়া ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহারে সাক্ষরতার হার শতভাগে উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি দিলে তা বাস্তবায়ন হয়নি।

এদিকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে প্রাথমিক এবং গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় শুক্রবার সকাল ১০ টায় মহাখালীস্থ উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো (বিএনএফই) অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন সচিব ফরিদ আহাম্মদ।

উপস্থিত ছিলেন ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক আবদুল করিম, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক শাহ রেজওয়ান হায়াত, বিএনএফইর মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আজাদ, ইউনেসকোর ঢাকা অফিস ইনচার্জ মিজ সুজান ভাইজ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোছা. নুরজাহান খাতুন।

প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বৈষম্যের অবসান ঘটিয়ে সাম্য ও সমতাভিত্তিক সমাজ গড়তে দেশের শতভাগ নাগরিককে সাক্ষরতার আওতায় আনতে হবে। সবার জন্য মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে প্রায় ২৩.২ শতাংশ জনগোষ্ঠী নিরক্ষর। শতভাগ জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান দিতে বর্তমান সরকারের নিরলস প্রয়াস অব্যাহত আছে।

এছাড়া ঝরে পড়া শিশুসহ বয়স্কদের সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন করে তুলার পাশাপাশি তাদের জীবিকায়নের বাস্তবসম্মত নানা উদ্যোগ নিয়েছে মন্ত্রণালয়।

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপন নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব ফরিদ আহাম্মদ বলেন, দেশে শতভাগ সাক্ষরতা অর্জনে মন্ত্রণালয়ের নিরন্তর প্রয়াস অব্যাহত আছে। এজন্য নানা ধরনের প্রকল্প চলমান।

১৯৬৫ সালের ১৭ নভেম্বর জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা (ইউনেস্কো) ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও সমাজের মধ্যে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা ও তাৎপর্য তুলে ধরার লক্ষ্যে এ দিবসটি নির্ধারণ করা হয়। ১৯৬৬ সালে ৮ সেপ্টেম্বর বিশ্বে প্রথম আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালন করা হয়।

প্রতিবছর এ দিবসটি উদযাপনের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিভিন্ন দেশের সাক্ষরতা এবং বয়স্ক শিক্ষার অবস্থা তুলে ধরা হয়। বাংলাদেশে ১৯৭২ প্রথম সাক্ষরতা দিবস উদযাপিত হয়।

 

Print Friendly, PDF & Email

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর