ঢাকা , শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শহরে ৮৪ ভাগ মানুষের হাঁটার জায়গা নেই

ক্রমবর্ধমান নগরায়ণের ফলে দিন দিন উন্মুক্ত স্থান, মাঠ, উদ্যান, পার্ক ও হাঁটার জায়গা কমে গেছে। যার ফলে শহরের ৮৪ শতাংশ মানুষ জায়গার অভাবে হাঁটতে পারে না। তাছাড়া ঢাকা শহরে বসবাসকারী মানুষের অনুপাতে ৭৯৫টি মাঠের প্রয়োজন হলেও কেবল ২৪৭টি মাঠ রয়েছে।

আবার এসব মাঠের অধিকাংশই বিভিন্ন ভাবে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং প্রভাবশালীদের দ্বারা দখল হয়ে যাচ্ছে। ঢাকার বাইরের শহরগুলোতেও একই অবস্থা বিরাজমান। একটি সুস্বাস্থ্যবান জাতি গঠন করতে হলে খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থানের বিকল্প নেই।

মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ‘দেশের নগর এলাকায় খেলার মাঠের পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনা : চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইপিডি) এবং ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ (ডব্লিউবিবি) ট্রাস্ট অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

ডব্লিউবিবির পরিচালক গাউস পিয়ারীর সভাপতিত্বে ও সিনিয়র প্রজেক্ট ম্যানেজার জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইপিডির পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান।

এতে আলোচনা উপস্থাপন করেন বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগের অধ্যাপক ড. শায়ের গফুর, আইপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম, উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ প্রমুখ।

 

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

Bangal Kantha

শহরে ৮৪ ভাগ মানুষের হাঁটার জায়গা নেই

আপডেট টাইম : ০৭:২১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ক্রমবর্ধমান নগরায়ণের ফলে দিন দিন উন্মুক্ত স্থান, মাঠ, উদ্যান, পার্ক ও হাঁটার জায়গা কমে গেছে। যার ফলে শহরের ৮৪ শতাংশ মানুষ জায়গার অভাবে হাঁটতে পারে না। তাছাড়া ঢাকা শহরে বসবাসকারী মানুষের অনুপাতে ৭৯৫টি মাঠের প্রয়োজন হলেও কেবল ২৪৭টি মাঠ রয়েছে।

আবার এসব মাঠের অধিকাংশই বিভিন্ন ভাবে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং প্রভাবশালীদের দ্বারা দখল হয়ে যাচ্ছে। ঢাকার বাইরের শহরগুলোতেও একই অবস্থা বিরাজমান। একটি সুস্বাস্থ্যবান জাতি গঠন করতে হলে খেলার মাঠ ও উন্মুক্ত স্থানের বিকল্প নেই।

মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ‘দেশের নগর এলাকায় খেলার মাঠের পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনা : চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ইনস্টিটিউট ফর প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইপিডি) এবং ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ (ডব্লিউবিবি) ট্রাস্ট অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

ডব্লিউবিবির পরিচালক গাউস পিয়ারীর সভাপতিত্বে ও সিনিয়র প্রজেক্ট ম্যানেজার জিয়াউর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইপিডির পরিচালক অধ্যাপক ড. আদিল মোহাম্মদ খান।

এতে আলোচনা উপস্থাপন করেন বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগের অধ্যাপক ড. শায়ের গফুর, আইপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম, উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. আকতার মাহমুদ প্রমুখ।