ঢাকা , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৪০ বছর জমে থাকা খালের ময়লা পরিষ্কার করলেন ব্যারিস্টার সুমন

হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুরে ৪০ বছর ধরে খালে জমে থাকা ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কারে নেমেছিলেন হবিগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে তিনি এই অভিযানের উদ্বোধন করেন। ক্লিন মাধবপুর নামে নবগঠিত সামাজিক সংগঠনের আয়োজনে এ পরিষ্কার অভিযান শুরু হয়।

মাধবপুর বাজারের প্রবীণ ব্যবসায়ী মো. ফজলুর রহমান বলেন, শিবপুরখাল নামে পরিচিত এই খালটি দিয়ে এক সময় বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের যাতায়াত ছিল। কিন্তু, আজ এই খালটি ভরাট হয়ে ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। খালের চিহ্ন হিসেবে রয়েছে কয়েক যুগ আগের একাধিক ব্রিজ। যা বর্তমানে অকেজো। খালটি পরিষ্কার করায় বাজারের লোকজন দুর্গন্ধ থেকে রেহাই পাবে।

খাল পরিষ্কার অভিযান শুরু করে সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমাদের চারপাশ পরিষ্কারে নিজের জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে। সরকারি বরাদ্দের পাশাপাশি নিজেরা শারীরিক পরিশ্রম করলেই সামাজিক ও রাষ্ট্রিয় দায়িত্ব সঠিকভাবে পালিত হবে। সবশেষে খাল পরিষ্কারের ব্যয় বাবদ তিনি পাঁচ লাখ টাকা অনুদান ঘোষণা করেন।

এ সময় মাধবপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহ মুসলিম, বশির মিয়া, রফিক ভূঁইয়া, বরকত আলীসহ নবগঠিত ক্লিন মাধবপুর সংগঠনের সদস্য ও স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

Bangal Kantha

৪০ বছর জমে থাকা খালের ময়লা পরিষ্কার করলেন ব্যারিস্টার সুমন

আপডেট টাইম : ০৬:০৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৪

হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুরে ৪০ বছর ধরে খালে জমে থাকা ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কারে নেমেছিলেন হবিগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে তিনি এই অভিযানের উদ্বোধন করেন। ক্লিন মাধবপুর নামে নবগঠিত সামাজিক সংগঠনের আয়োজনে এ পরিষ্কার অভিযান শুরু হয়।

মাধবপুর বাজারের প্রবীণ ব্যবসায়ী মো. ফজলুর রহমান বলেন, শিবপুরখাল নামে পরিচিত এই খালটি দিয়ে এক সময় বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের যাতায়াত ছিল। কিন্তু, আজ এই খালটি ভরাট হয়ে ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। খালের চিহ্ন হিসেবে রয়েছে কয়েক যুগ আগের একাধিক ব্রিজ। যা বর্তমানে অকেজো। খালটি পরিষ্কার করায় বাজারের লোকজন দুর্গন্ধ থেকে রেহাই পাবে।

খাল পরিষ্কার অভিযান শুরু করে সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমাদের চারপাশ পরিষ্কারে নিজের জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে। সরকারি বরাদ্দের পাশাপাশি নিজেরা শারীরিক পরিশ্রম করলেই সামাজিক ও রাষ্ট্রিয় দায়িত্ব সঠিকভাবে পালিত হবে। সবশেষে খাল পরিষ্কারের ব্যয় বাবদ তিনি পাঁচ লাখ টাকা অনুদান ঘোষণা করেন।

এ সময় মাধবপুর পৌরসভার সাবেক মেয়র শাহ মুসলিম, বশির মিয়া, রফিক ভূঁইয়া, বরকত আলীসহ নবগঠিত ক্লিন মাধবপুর সংগঠনের সদস্য ও স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।